পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্দশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পূরবী বালক ছিলাম, কিছু নহে তার বাড়া, রবির আলোর কোলেতে ছিলেম ছাড়া, চাপার গন্ধ বাতাসের প্রাণ-কাড়া যেত মোরে ডাকি ডাকি । সহজ রসের ঝরনা-ধারার পরে so, I গান ভাসাতেম সহজ স্বখের ভরে । শোনো শোনো, ওগো বকুল-বনের পাখি, কাছে এসেছিন্থ ভুলিতে পারিবে তা কি ? নগ্ন পরান লয়ে আমি কোন স্বখে সারা আকাশের ছিন্থ যেন বুকে বুকে, বেলা চলে যেত অবিরত কৌতুকে সব কাজে দিয়ে ফাকি । শু্যামলা ধরার নাড়ীতে যে-তাল বাজে নাচিত আমার অধীর মনের মাঝে । শোনো শোনো, ওগো বকুল-বনের পাখি, দূরে চলে এমু, বাজে তার বেদনা কি ? আষাঢ়ের মেঘ রহে না কি মোরে চাহি ? সেই নদী যায় সেই কলতান গাহি,— তাহার মাঝে কি আমার অভাব নাহি ? কিছু কি থাকে না বাকি ? বালক গিয়েছে হারায়ে, সে-কথা লয়ে কোনো জাখিজল যায় নি কোথাও বয়ে ? শোনো শোনো, ওগো বকুল-বনের পাখি, আর বার তারে ফিরিয়া ডাকিবে না কি ? যায় নি সেদিন যেদিন আমারে টানে, ধরার খুশিতে আছে সে সকল খানে ; অাজ বেঁধে দাও আমার শেষের গানে তোমার গানের রাখি । 8?