পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ত্রয়োবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৫২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S8२ রবীন্দ্র-রচনাবলী গান আমি তারেই জানি তারেই জানি অামায় যে জন আপিন জানে— তারি দানে দাবি আমার যার অধিকার আমার দানে । যে আমারে চিনতে পারে সেই চেনাতেই চিনি তারে, একই আলো চেনার পথে তার প্রাণে আর আমার প্রাণে আপন মনের অন্ধকারে ঢাকল যারা অামি তাদের মধ্যে আপনহারা । ছুইয়ে দিল সোনার কাঠি, ঘুমের ঢাকা গেল ফাটি, নয়ন আমার ছুটেছে তার আলো-করা মুখের পানে ॥ মা। শাপ লাগার ভয় করিস নে তুই ? প্রকৃতি । শাপ তো লেগেই আছে জন্মকাল থেকে । এক শাপের বিযে আর-এক শাপের বিষ ক্ষয় হয়ে যায় । কোনো কথাই শুনব না, মা, শুনব না, শুনব না। শুরু করে দে মন্ত্র । পারব না দেরি সইতে । মা। আচ্ছ, তা হলে কী নাম তার বল । প্রকৃতি । র্তার নাম আনন্দ । মা । আনন্দ ? ভগবান বুদ্ধের শিষ্য ? প্রকৃতি । হা, সেই ভিক্ষু । ম। তুই আমার বুক-চেরা ধন, আমার চোখের মণি— তোর কথাতেই এতবড়ো পাপে হাত দিচ্ছি । প্রকৃতি । কিসের পাপ ! যিনি সবাইকে কাছে আনেন তঁকে কাছে আনিব, তাতে দোষ হয়েছে কী । মা। ওঁরা পুণ্যের জোরে টেনে আনেন মানুষকে । আমরা মন্তর পড়ে টানি, পশুকে টানে ঘে-ফালে । আমরা মথন করে তুলি পাক । প্রকৃতি । ভালোই সে ভালোই, নইলে পঙ্কোদ্ধার হয় না।