পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ত্রয়োবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র-রচনাবলী যে দক্ষিণ্য-উৎস হতে উৎসারিত এই মধুরতা রসনার রসযোগে অস্তরে পশিবে তার কথা । ভেবেছিকু, অকৃতার্থ হয় যদি তোমার প্রয়াস সক্ষেহ অপঘাত দেবে তোমারে অামার পরিহাস ; তখন তো জানি নাই, গিরীদের বন্য মধুকরী তোমার সহায় হয়ে অর্ঘ্যপাত্র দিবে তব ভরি । দেখিহু, বেদের মন্ত্র সফল হয়েছে তব প্রাণে । তোমারে বরিল ধরা মধুময় আশীর্বাদ দানে । 念 মার্চ, R S రి ৭ মার্চ, ১৯৪০ g দূর হতে কয় কবি, ‘জয় জয় মাংপবী, কমলাকানন তব না হউক শূন্ত । গিরিতটে সমতটে আজি তব যশ রটে, আশারে ছাড়ায়ে বাড়ে তব দানপুণ্য । তোমাদের বন ময় অফুরণন যেন রয় মৌচাক-রচনায় চিরনৈপুণ্য । কবি প্রাতরাশে তার ন করুক মুখভার, নীরস রুটির গ্রাসে না হোক সে ক্ষুঃ r অ রবার কয় কবি, ‘জয় জয় মাংপবী, টেবিলে এসেছে নেমে তোমার কারুণ্য । রুটি বলে জয়-জয়, লুচি ও যে তাই কয়, মধু যে ঘোষণা করে তোমারই তারুণ্য ।”