পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৫০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S२७ রবীন্দ্র-রচনাবলী ক্ষণিক মিলন একদা এলোচুলে কোন ভুলে ভুলিয়া আসিল সে আমার ভাঙা দ্বার খুলিয়া । জ্যোৎস্না অনিমিখ, চারি দিক স্থবিজন, চাহিল এক বার আঁখি তার তুলিয়া । দখিন বায়ুভরে থরথরে কাপে বন, উঠিল প্রাণ মম তারি সম দুলিয়া । আবার ধীরে ধীরে গেল ফিরে আলসে, আমার সব হিয়া মাড়াইয়া গেল সে । আমার যাহা ছিল সব নিল আপনায়, হরিল আমাদের আকাশের আলো সে । সহসা এ জগৎ ছায়াবহ হয়ে যায়, তাহারি চরণের শরণের লালসে । যে জন চলিয়াছে তারি পাছে সবে ধায়, নিখিলে যত প্রাণ যত গান ঘিরে তায় । সকল রূপ-হার উপহার চরণে, ধায় গো উদাসিয়া যত হিয়া পায় পায় । বে জন পড়ে থাকে এক ভাকে মরণে, স্থদুর হতে হাসি আর বঁাশি শোনা যায়। শবদ নাহি আর, চারি ধার প্রাণহীন, কেবল ধুকধুক করে বুক নিশিদিন । যেন গো ধ্বনি এই তারি সেই চরণের, কেবলি বাজে শুনি, তাই গুনি দুই তিন । কুড়ায়ে সব শেষ অবশেষ স্মরণের বসিয়া এক জন আনমন উদাসীন । জোড়াসাকো ৯ ভাদ্র, ১৮৮৯