পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৩৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२२० রবীন্দ্র-রচনাবলী শূন্তঘর গোধূলি-অন্ধকারে পুরীর প্রাস্তে অতিথি আসিতু দ্বারে। ডাকিতু, আছ কি কেহ, সাড়া দেহে, সাড়া দেহে ।” ঘরভরা এক নিরাকার শূন্তত না কহিল কোনো কথা । বাহিরে বাগানে পুষ্পিত শাখা । গন্ধের আহবানে সংকেত করে কাহারে তাহ কে জানে । হতভাগা এক কোকিল ডাকিছে খালি, জনশূন্তত নিবিড় করিয়া নীরবে দাড়ায়ে মালী । সিড়িটা নির্বিকার বলে, ‘এস আর নাই যদি এস . সমান অর্থ তার ।” ঘরগুলো বলে ফিলজফারের গলায়, ‘ডুব দিয়ে দেখো সত্তাসাগর-তলায় বুঝিতে পরিবে, থাকা নাই থাকা আসা আর দূরে যাওয়া সবই এক কথা, খেয়ালের ফাকা হাওয়া।’ কেদারা এগিয়ে দিতে কারো নেই তাড়া, প্রবীণ ভৃত্য ছুটি নিয়ে ঘরছাড়া । মেয়াদ যখন ফুরোয় কপালে, হায়রে তখন সেবা কারেই বা করে কেবা ।