পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কথা । আরতিঘন্টা ধ্বনিল প্রাচীন রাজদেবালয়ঘরে । শারদনিশির স্বচ্ছ তিমিরে তারা অগণ্য জলে । সিংহদুয়ারে বাজিল বিষাণ, বন্দীরা ধরে সন্ধ্যার তান, ‘মন্ত্রণাসভা হল সমাধান? দ্বারী ফুকারিয়া বলে । এমন সময়ে হেরিল চমকি প্রাসাদে প্রহরী যত— রাজার বিজন কানন-মাঝারে স্তুপপদমূলে গহন আঁধারে । জলিতেছে কেন যেন সারে সারে প্রদীপমালার মতো ! মুক্তকৃপাণে পুররক্ষক তখনি ছুটয় আসি শুধালো, ‘কে তুই ওরে দুর্মতি, মরিবার তরে করিস আরতি ? মধুর কণ্ঠে শুনিল, ‘শ্ৰীমতী আমি বুদ্ধের দাসী । সেদিন শুভ্ৰ পাষাণফলকে পড়িল রক্তলিখা । সেদিন শারদ স্বচ্ছ নিশীথে প্রাসাদকাননে নীরবে নিভৃতে স্ত,পপদমূলে নিবিল চকিতে । শেষ আরতির শিখা ৷ ১৮ আশ্বিন ১৩০৬ 3