পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


44 ° р রবীন্দ্র-রচনাবলী রাজা । বল কী, তার শিক্ষা হল কোথায় ? মন্ত্রী। তার শিক্ষা হয়ই নি । রাজা। তবে ? সে কি হাত পা নেড়ে, গলা ছেড়ে দিয়ে আসর জমাতে পারবে ? সে যে আনাড়ি । | মন্ত্রী। পাছে যারা হাত পা নাড়তে শিক্ষা পেয়েছে তাদের ডাকা হয় এই ভয়েই সে নিজেই সন্ন্যাসী সাজবার ভার নিয়েছে। সে বলে, পালার বিষয়টা যেমন অনর্থক পালার নটের দলও তেমনি অশিক্ষিত । রাজা । ত, এ নিয়ে এখন পরিতাপ করে কোনো লাভ নেই। তা হলে আরম্ভ করে দাও। একটা সুবিধে এই যে, বেশি-কিছু আশা করব না, সুতরাং বেশি-কিছু নৈরাষ্ঠের আশঙ্কা থাকবে না । গোড়ায় একটা গান হবে তো ? _ মন্ত্রী ৷ হবে বৈকি। এই-যে, গানের দল আপনার পাশেই বসে। —অনুষ্ঠানপত্র। শারদোৎসব ভাত্র ১৩২৯ arশুিনিকেতনে শারদোৎসবের প্রথম অভিনয় ( ১৩১৫ ) -উপলক্ষে কবি এই নাটকের জন্য একটি নান্দী রচনা করিয়াছিলেন। উহা গ্রন্থে মুদ্রিত হয় নাই, নিম্নে সংকলিত হইল— শরতে হেমন্তে শীতে বসন্তে নিদাঘে বরষায় অনন্ত সৌন্দর্যধারে র্যাহার আনন্দ বহি যায় সেই অপরূপ, সেই অরূপ, রূপের নিকেতন / নব নব ঋতুরসে ভরে দিন সবাকার মন । প্রফুল্ল শেফালিকুঞ্জ যার পায়ে ঢালিছে অঞ্জলি, কাশের মঞ্জরীরাশি র্যার পানে উঠিছে চঞ্চলি— স্বর্ণদীপ্তি আশ্বিনের স্নিগ্ধ হাস্তে সেই রসময় নির্মল শারদরূপে কেড়ে নিন সবার হৃদয় । —ভারতী। কাতিক ১৩১৫ ইংরেজি ১৯২১ সালে, শারদোৎসব নানা স্থানে পরিবর্তিত ও পরিবর্ধিত হইয়া, নূতন ভূমিকা ও চরিত্র লইয়া, ঋণশোধ' নাটকে রূপান্তরিত হয়। বর্তমানে উহা প্রচলিত নাই ।