পাতা:রাজমালা - ভূপেন্দ্রচন্দ্র চক্রবর্ত্তী.pdf/২৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।

রাজমালা



রামগঙ্গামাণিক্য



(৪)

রামগঙ্গামাণিক্য

 ১৮১৩ খৃষ্টাব্দে (১২২৩ ত্রিপুরাব্দে) দুর্গামাণিক্যের মৃত্যু সংবাদ দেশে প্রচারিত হইলে রামগঙ্গামাণিক্য স্বীয় দাবী কর্ত্তৃপক্ষের গোচর করিলেন। ব্রিটিশ গভর্ণমেণ্ট রামগঙ্গামাণিক্যকে সিংহাসনের প্রকৃত উত্তরাধিকারী ঘোষণা করিলেন কিন্তু আরও অনেক দাবীদার জুটিয়া গেল। দ্বিতীয় বিজয়মাণিক্য-তনয় রামচন্দ্র ঠাকুর, তাঁহার পুত্র শম্ভুচন্দ্র, রাজধরমাণিক্যের জ্যেষ্ঠ ভ্রাতুষ্পুত্র অর্জ্জুনমণি এবং সুমিত্রা দেবী, ইঁহারা সকলেই সিংহাসনে স্ব স্ব দাবী জানাইলেন। কিন্তু ব্রিটিশ কর্ত্তৃপক্ষের অঙ্গুলি সঙ্কেতে সকল দাবীদারই নিরস্ত হইয়া গেলেন—রামগঙ্গামাণিক্য পুনঃ রাজদণ্ড ধারণ করিলেন। গোবিন্দমাণিক্যের ন্যায় তাঁহার রাজযোগে ভঙ্গযোগ লক্ষিত হয়, তাই বহু কষ্ট সহিয়া পুনঃ সিংহাসন লাভ করেন। ১২২৩ ত্রিপুরাব্দে রাজদণ্ড ধারণ করিলেও তাঁহার অভিষেককার্য্য প্রতিপক্ষদের জন্য কিছুকাল স্থগিত থাকে।

 আইন বলে আঁটিয়া উঠিতে না পারিয়া শম্ভুচন্দ্র রামগঙ্গামাণিক্যের বিরুদ্ধে অস্ত্রধারণ করেন—কুকিদের উত্তেজিত করিয়া মহারাজের সহিত বিগ্রহ উপস্থিত করেন।

 মহারাজ রামগঙ্গামাণিক্য যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হইলেন,