পাতা:রাধারাণী-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


չԵ. রজনী অসম্মত । চাপ একটু শক্ত মেয়ে । যাহাতে ঘরে সপত্নী না হয়—তাহার চেষ্টার কিছু ক্রটি , করিল না । হীরালাল নামে চাপার এক ভাই ছিল–চাপাব অপেক্ষ দেড় বৎসরের ছোট । হীরালাল মদ খায়—তাহাও অল্প মাত্রায় নহে। শুনিয়াছি, গাজাও টানে। তাহার পিতা তাহাকে লেখা পড়া শিখান নাই—কোন প্রকারে সে হস্তাক্ষরটি প্রস্তুত করিয়াছিল মাত্র, তথাপি রামসদয়বাবু তাহাকে কোথা কেরানিগিরি করিয়া দিয়াছিলেন । মাতলামির দোযে সে চাকরিটি গেল। হরনাথ বস্তু, তাহার দমে ভুলিয়া, লাভের আশায় তাহাকে দোকান করিয়া দিলেন। দোকানে লাভ দূরে থাক, দেন পড়িল—দোকান উঠিয়া গেল। তার পর কোন গ্রামে, বার টাকা বেতনে হীরালাল মাস্টার হইয়া গেল। সে গ্রামে মদ পাওয়া যায় না বলিয়া হীরালাল পলাইয়া আসিল । তার পর সে একখান খবরের কাগজ করিল। দিনকতক তাহাতে খুব লাভ হইল, বড় পসার জাকিল—কিন্তু অশ্লীলতা দোষে পুলিষে টানাটানি আরম্ভ করিল—ভয়ে হীরালাল কাগজ ফেলিয়া রূপোষ হইল। কিছুদিন পরে হীরালাল আবার হঠাৎ ভাসিয়া উঠিয়া ছোটবাবুর মোসায়েবি করিতে চেষ্টা করিতে লাগিল । কিন্তু ছোট বাবুর কাছে মদের চাল নাই দেখিয়া আপন আপনি সরিল। অনন্তোপায় হইয়া নাটক লিখিতে আরম্ভ করিল। নাটক একখানিও বিক্রয় হইল না। তবে ছাপাখানার দেন। শোধিতে হয় না বলিয়া সে যাত্রা রক্ষা পাইল। এক্ষণে এ ভবসংসারে আর কুল কিনার না দেখিয়া—হীরালাল চাপাদিদির আঁচল ধরিয়া বসিয়া রহিল। চাপা হীরালালকে স্বকাৰ্য্যোদ্ধার জন্য নিয়োজিত করিল। হীরালাল ভগিনীর কাছে সবিশেষ শুনিয়া জিজ্ঞাসা করিল, “টাকার কথা সত্য ত ? যেই কাণীকে বিবাহ করিবে, সেই টাকা পাইবে ?” চাপ সে বিষয়ে সন্দেহভঞ্জন করিল। হীরালালের টাকার বড় দরকার। সে তখনই আমার পিতৃভবনে আসিয়া দর্শন দিল। পিতা তখন বাড়ী ছিলেন। আমি তখন সেখানে ছিলাম না। আমি নিকটস্থ অন্ত ঘরে ছিলাম—অপরিচিত পুরুষে পিতার সঙ্গে কথা কহিতেছে, কণ্ঠস্বরে জানিতে পারিয়া, কাণ পাতিয়া কথাবার্তা শুনিতে লাগিলাম । হীরালালের কি কর্কশ কদৰ্য্য স্বর। হীরালাল বলিতেছে, “সতীনের উপর কেন মেয়ে দিবে ?” পিত ফুঃখিতভাবে বলিলেন, “কি করি! না দিলে ত বিয়ে হয় ন—এত কাল ত হলো না ।”