পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৪২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুৰ্থ আধ্যাক্স রামনগর এবং চিলিয়ানওয়ালার যুদ্ধ ১৮৪৮ খ্ৰীঃ অক্টোবর—১৮৪১ খ্ৰীঃ জানুয়ারী [ ছত্র সিংহের বিদ্রোহ ;–মেজর জর্জ লরেন্স প্রভৃতির কোহাটে পলায়ন ;–কোহাটের শাসনকর্তা সুলতান মহম্মদ খাঁ কতৃক লরেন্স প্রভৃতিকে ছত্র সিংহের নিকট বিক্রয় ;-রামনগরে শের সিংহের সহিত ইংরেজপক্ষের ঘোর যুদ্ধ –কিওরটন, হাভেলক প্রভৃতির মৃত্যু —শের সিংহের সৈন্যদল কতৃক রামনগর পরিত্যাগ ;– ছত্র সিংহের সহিত শের সিংহের সন্মিলন ;–চিলিয়ানওালায় ইংরাজ পক্ষের সহিত শিখপক্ষের ঘোর সময় –চিলিয়ানওয়ালায় ইংরাজ-পক্ষের পরাজয় —ঐ যুদ্ধে জয়-পরাজয় সম্বন্ধে মত-পার্থক্য । ] হাজারে প্রদেশে ছত্র সিংহ বিদ্রোহের অনল গুধুমিত করিয়া তুলিয়াছিলেন। এক্ষণে সেই বিদ্রোহানল বিস্তৃত হইয়া পড়িল । তাহার সহিত আফগানজাতি যোগদান করায়, ছত্র সিংহের বিশেষ বলবুদ্ধি হইল। ১৮৪১ খ্ৰীষ্টাব্দের ২৪শে অকৃটোবর পেশওয়ারের সমস্ত শিখ-সৈন্য বিদ্রোহে যোগদান করিল। তাহাদিগকে পুনরায় কার্যে প্রবৃত্ত করার চেষ্টায় মেজর জর্জ লরেন্স অকৃতকার্য হইলেন । অতঃপর তিনি আপনাকে বাচাইবার জন্য আপন সহকারী লেফটেনাণ্ট বাউইর সহিত কোহাটে পলায়ন করিলেন । কোহাট, পেশওয়ার হইতে ৩৮ মাইল দক্ষিণে অবস্থিত । কাবুলের আমীর দোস্ত মহম্মদের ভ্রাতা সুলতান মহম্মদ খাঁ এই সময়ে কোহাটের শাসনকর্তা ছিলেন। আফগান-যুদ্ধের সময় ইংরেজগণ র্তাহার নৃশংসতার বহু পরিচয় পাইয়াছিলেন । তথাপি অনন্তোপায় হইয়া লরেন্স সেখানেই আশ্রয় লইতে বাধ্য হইলেন । ইতিপূর্বে লাহোরে বিদ্রোহ উপস্থিত হইবার সময়, লরেন্সের পত্নী লাহোর হইতে পলায়ন করিয়া কোহাটে আশ্রয় গ্রহণ করেন। সে কারণেও লরেন্স এবং তাহার সহকারিগণ কোহাটে গমন করিতে ইচ্ছুক হন। কিন্তু তাহদের কোহাট-গমনের ফল বড়ই বিষময় হইয়া দাড়াইল । কোহাটের শাসনকর্তা স্বলতান মহম্মদ, ইংরেজ অতিথিগণের প্রতি সদ্ব্যবহার করিবেন বলিয়া, ইংরেজগণ আশা করিয়াছিলেন ; কিন্তু সদ্ব্যবহারের পরিবর্তে, স্থলতান মহম্মদ তাহাদিগকে ছত্র সিংহের নিকট বিক্রয় করিলেন। ছত্র সিংহ, স্থলতান মহম্মদকে পেশওয়ার জেলার অংশ প্রদান করিং , ইংরেজগণকে বন্দিরূপে প্রাপ্ত হইলেন । ছত্র সিংহের বিদ্রোহ এবং শের সিংহের ইংরাজ পক্ষ পরিত্যাগ, উভয় কারণেই গবর্ণর জেনারেল বড়ই চিন্তিত হইয়া পড়িলেন। বুৰি বা শিখগণ আবার এক নূতন উদ্দীপনায় উদ্দীপিত হইয়া, আবার এক নূতন সমরানল প্ৰজলিত করিল, এই চিন্তা তখন অনেকেরই মনে উদয় হইল। অতঃপর প্রধান সেনাপতি লর্ড গাঁফের উপর ফিরোজপুরে সৈন্ত সমাবেশের আদেশ প্রদান করিয়া, গবৰ্গর জেনারেল উত্তর-পশ্চিম-প্রদেশভিমূখে অগ্রসর