পাতা:শ্রীমদ্‌ভগবদ্‌গীতা-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


# * শ্ৰীমদ্ভগবদগীতা । 4. একটা মনুষ্যদেহ ভিন্ন “তুমি” বলিব এমন কোন সামগ্ৰী দেখিত্ত্বে পাই না । তোমার দেহ এবং দৈহিক প্রক্রিয়া ইহাই কেবল আমার জ্ঞানগোচর । তবে কি তোমার দেহেরই এই স্থখ দুঃখ ভোগ বলিব ? তোমার মৃত্যু হইলে তোমার সেই দেহ পড়িয়া থাকিবে কিন্তু তৎকালে তাহার মুখ স্থঃখ ভোগের কোন লক্ষণ দেখা যাইবে না। আবার মনে কর কেহ তোমাকে অপমান করিয়াছে, তাহাতে দেহের কোন বিকার নাই, তথাপি তুমি দুঃখী । তবে তোমার দেহ দুঃখ ভোগ করে না। যে ছুঃখভোগ করে সে স্বতন্ত্র । সেই তুমি । তোমার দেহ তুমি নহে । এইরূপ সকল জীবের । অতএব দেখা যাইতেছে যে, এই জগতের কিয়দংশ ইন্দ্রিয়-গোচর, কিয়দংশ অনুমেয় মাত্র, ইন্দ্রিয়গোচর নহে, এবং সুখ দুঃখাদির ভোগকর্তা । যে মুখ ফুঃখাদির ভোগকৰ্ত্ত সেই আত্মা ।” * আত্মতত্ত্ব বিষয়ক, এই স্থূল কথাটা খ্ৰীষ্টিয়াদি সকল ধৰ্ম্মেষ্ট আছে । কিন্তু তাঁহার উপর আর একটা অতি সূক্ষ্ম, অতি চমৎকার কথা, কেবল হিন্দুধৰ্ম্মেই আছে । সেই তত্ত্ব অতি উন্নত, উদার, বিশুদ্ধ, বিশ্বাসমাত্রে মনুষ্যজন্ম সার্থক হয় । হিন্দু ভিন্ন আর কোন জাতিই সেই অতি মহত্তত্ব অনুভূত করিতে পারে নাই । যে সকল কারণে, হিন্দুধৰ্ম্ম অন্ত সকল ধৰ্ম্মের অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ, ইহা তাহীর মধ্যে একটী অতি গুরুতর কারণ । সেই তত্ত্ব এখন বুঝাইতেছি ।

  • প্রবন্ধ পুস্তক ।