পাতা:সচিত্র কৃত্তিবাসী রামায়ণ -নয়নচন্দ্র মুখোপাধ্যায়.pdf/৩৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

२१8 ്.ണ്ണസ്റ്റ് সীতা মা’র গাত্রে মলা, মলিন বদন। তবু রূপে আলো করে অশোকের বন ॥ রাবণে দেখিয়া সীতার উড়ে গেল প্রাণ । বলেন দু’হাত তুলি রক্ষ ভগবান ॥ এমন সময়ে কোথা দেবর লক্ষণ । জাতি মান রক্ষা কর ভাই দুই জন । বিকলি (১) করিয়া সীতা কৈলা হেঁট মাথে । মাথা তুলি না চাহেন রাবণ সাক্ষাতে ॥ রাবণ সীতায় হেরি ভাবে মনে-মন ৷ আমার উদ্ধারে সীতা তব আগমন ॥ যে হোক সে হোক মোর, জানি মনে মনে । উন্নত হইয়া আমি নত হই কেনে | ডাক দিয়া বলে তবে লঙ্কা-অধিকারী । হেঁট মাথা কৈলে কেন জনক-ঝিয়ারী ॥ অভিমান ছাড়ি সীতা, চাহ নেত্র-কোণে । পাটরাণী হ’য়ে বস স্বর্ণ-সিংহাসনে ৷ দশহাজার দেব-ক্যা বিভা করি আমি । তার মধ্যে পাটরাণী হ’য়ে রহ তুমি ৷ সৰ্ব্বাঙ্গ-ভরিয়া পর রাজ-আভরণ । তব আজ্ঞাকারী রবে রাজা দশানন ৷ মোর মত রাজা আর নাহি ত্রিভুবনে । ধনের ঈশ্বর আমি, জানে জগ-জনে (২) || রাবণ বলিল, সীতা, কারে তব ডর। দেবতা আসিতে নারে লঙ্কার ভিতর || বলে ধরি অনিয়াছি এই ত্রাস মনে । রাক্ষসের জাতি-ধৰ্ম্ম ছলে বলে আনে ৷ ত্রিভুবন জিনিয়া তোমার সুবদন । কি পদ্ম কি সুধাকর হেন লয় মন ॥ স্থই কর্ণে শোভে তব রত্বের কুণ্ডল। দেখি নবনীত-প্রায় শরীর কোমল । [ সুন্দরকাণ্ড মুষ্টিতে ধরিতে পারি তোমার র্কাকালি । হিঙ্গুলে মণ্ডিত তব চরণ-অঙ্গুলি ৷ করিয়া রামের সেবা জন্ম গেল দুঃখে । হইয়া আমার ভার্য্যা থাক নানা সুখে ॥ রামের অত্যন্ন ধন, অত্যন্ত্র জীবন। শোকে দুঃখে ফিরে রাম করিয়া ভ্রমণ ॥ এখন কি আছে রাম, মনে হেন বাস (৩) । বনের মধ্যেতে তারে খাইল রাক্ষস | মোর বাণে সুমেরু নাহিক ধরে টান । মানুষ সে রাম, সে কি আমার সমান | দেবতা দানব যক্ষ কিন্নর গন্ধৰ্ব্ব । যুদ্ধে করিলাম চুর সবাকার গর্ব। দিগ্বিজয় (৪) কৈমু আমি রণে বাহুবলে । কত শত যোদ্ধপতি দিমু রসাতলে। হেন জন ছাড়ি তব তপস্বীতে মন । জটীল তপস্বী তব শ্রীরাম-লক্ষণ ৷ কিছু বুদ্ধি নাহি তব অবোধিনী (৫) সীতা । সৰ্ব্বলোকে তোমা কেন বলয়ে পণ্ডিত | নানাশাস্ত্র জানি আমি বিবিধ বিধানে। তুমি আমি সুখে বাস করিব দুজনে ॥ নানা রত্বে পুর্ণ আছে আমার আগার। আজ্ঞা কর সুন্দরি, সে সকলি তোমার | তোমার সেবক আমি, তুমি ত ঈশ্বরী। তোমার আজ্ঞাতে ল’য়ে যাই অন্তঃপুরী ॥ তোমার চরণে ধরি করি হে ব্যগ্রতা (৬) । কোপ ত্যজি মোর কথা শুন দেবী সীতা ॥ কারো পায়ে নাহি পড়ে রাজা দশানন । দশ মাথা লোটাইমু তোমার চরণে | রাবণের বাক্যে সীতা-কুপিয়া অন্তরে । কহেন রাবণ প্রতি অতি ধীরে ধীরে ॥ (১। বিকলি—ব্যাকুলত । (২) জগ-জনে –জগতের লোকে । (৩) বাস—ইচ্ছা কর । (१) शिश्विद्र-जूरु দশদিকের রাজগণকে পরাজিত করা। (৫) অবোধিনী-বুদ্ধি-হীনা । (৬) ব্যগ্রতা-একস্তিআগ্রহ ।