পাতা:সচিত্র রেল অবতার - অনাথবন্ধু সেন.pdf/৪২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

৩২

রেল অবতার।

যে লেখা পড়া হইয়াছে তাহাই ঢের। তমসুক, পাট্টা কবুলতি যখন লিখিতে শিখিয়াছে, তখন আপনার গণ্ডা বুঝিয়া লইতে পারিবে। চাষা ভূষার ছেলের আর বেশী বিদ্যায় কাজ কি?”

 বিনোদ ঘরে থাকিয়াই চাষ বাস দেখিবে—জিনিষ, জমি বন্ধক রাখিয়া মহাজনী করিবে—আত্মীয় স্বজনেরা এরূপ মনে করিলেও, বিনোদ চাকরী করাই যুক্তিসঙ্গত মনে করিল। ছেলেবেলা হইতেই সে ভদ্রলোকের লিষ্টির মধ্যে নাম ঢুকাইতে চায়। এখন লেখা পড়া শিখিয়া ঘরে বসিয়া থাকিলে, আপনাকে ভদ্র বলিয়া প্রতিপন্ন করিবে কিরূপে?

 বাক্স হইতে কিছু টাকা ভাঙ্গিয়া লইয়া, একদিন রাত্রে বিনোদ বাড়ী হইতে পলাইয়া গেল। যেখানে রেলের বড় অফিস আছে—তাহা সে জানিত। টিকিট কাটিয়া, সে সেখানে রওনা হইল।

 নূতন জায়গায় আসিলেও, বিনোদ রেলের লোকের সহিত অল্প সময়েই ভাবসাব্ করিয়া লইল। চাকরী কিছু খালি আছে কিনা, ও কেমন করিয়া যোগাড় করা যাইতে পারে, তাহাও জানিয়া লইতে, তাহার বেশী কিছু সময় লাগিল না।

 বিনোদের বয়স ১৬৷১৭ বৎসরের বেশী হইবে না। চেহারাটিও নেহাত মন্দ নয়। নানা অসুবিধার কথা বলিয়া কহিয়া সে রেলওয়ে মেসের ভিতর আপনার স্থান করিয়া লইল।

 সেই সময় একটি টিকিট-কালেক্টারের চাকরী খালি ছিল, কিন্তু উমেদার অসংখ্য। সকলেই তাহাকে সেই চাকরীটি