পাতা:সার্বজনীন - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

সাৰ্বজনীন SS8 রোয়াকে উঠে বসতে গিয়ে খোলা দরজা দিয়ে ভিতরে তাকিয়ে সুরমা আশ্চৰ্য হয়ে যায়। ঘরে বসে সাধন কতগুলি জুতার সোল গুছিয়ে রাখছে। সবিতা বলে, ধরা পড়ে গেলেন, আমার কিন্তু দোষ নেই। বাড়ীতে মানুষ এলে বসতে দিতে হয় । সুরমা আরও আশ্চৰ্য বলে, ধরা পড়ে গেল মানে ? আমার ঘরে বসে তোমার দাদা জুতোর সোল ঘাঁটছে। মানেটা তো এবার তোমায় বুঝিয়ে বলতেই হবে সুরমাদি ? তোমাদের কাছে গোপন যা করছিলেন সেটা ধরা পড়ে গেল । সুরমা শুধু বলে, কি যে কাণ্ড তোমরা ব্যাটাছেলেরা জুড়েছ ! সাধন রোয়াকে বেরিয়ে এসে বলে, বাড়ীতে বলিস না ।

কি বলব না বাড়ীতে ? আমি তো মাথামুণ্ডু কিছুই বুঝতে পারছি না ।
আমি আজকাল জুতোর সোল ফিরি করছি।
Ve !

সুরমা কয়েকবার ঢোক গেলে ।

আমাদের কাছে গোপন করে কেন ?
মা বাবা জানতে পারলে হাটফেল করবে। তাই ।

হার্টফেল করা দোষের কি ? লেখাপড়া শিখে শেষে এই দশা হল তোমার ? জুতোর সোল ফিরি করছি ! সবিতা হেসে বলে, তুমিই যেন হার্টফেল করে ফেলো না সুরমাদি ! আমার হার্ট শক্ত আছে। স্বামীর পাগল হওয়া সয়ে গেছে, দাদা জুতোর সোল ফিরি করছে শুনে হার্টফেল করব ?