পাতা:সিতিমা.pdf/১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
সিতিমা

সিতিমা।  না পেলে কিছু দেওয়া যায় না?

পুষ্পিতা।  না পেলে কিছুতো ভাল লাগেনা। তাই মহারাজ যেদিন একটু মুখের দিকে স্নেহের চোখে তাকান, ইচ্ছা হয় তাঁর পায়ে লুটিয়ে পড়ি; যেদিন অন্যমনস্ক হয়ে বসে থাকেন, সেদিন আমার পায়ের নুপূর, হাতের কঙ্কণ খুলে ফেলে, কণ্ঠের হার ছড়া টেনে ছিঁড়ে, ওড়নাখানা উড়িয়ে দিয়ে, একেবারে বাইরে গিয়ে, ধূলায় মুখ গুঁজে পড়ে থাক্‌তে ইচ্ছা করে।

সিতিমা।  ও বাবা! কি অভিমান গো!


[গান]
মিছা এই সাজ সখি মিছা এই সাজ গো
বসনে ভূষণে মোর কিবা আর কাজ গো?
বলে দে’ কি দিয়ে ঢাকি জীবনের লাজ গো
ফেলে দে ফুলের শয্যা ধূলে শোব আজ গো।

পুষ্পিতা।  হয়েছে কবি মশাই, আর না।

সিতিমা।  [ স্নেহভরে পুস্পিতার দিকে চাহিয়া, মৃদু হস্ত পূর্বক ] এত অভিমান তোর?

পুষ্পিতা।  ভাই, যে ভালবাসেনা তার উপর আবার অভিমান কি? যে ভালবাসা চেয়ে ভালবাসা দাবী করতে দেয়, তার উপরেই অভিমান সাজে। চন্দ্র সুর্য্যের উপর কি মানুষের অভিমান সাজে? প্রভুর উপর কি দাসীর অভিমান সাজে? হায়, অভিমান কর্‌বার ভাগ্যও যে আমাদের নাই!