পাতা:অক্ষয়কুমার বড়াল গ্রন্থাবলী.djvu/২৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8S 。 অক্ষয়কুমার বড়াল-গ্রন্থাবলী নিয়ে নূতন দেশের কথা, নূতন রঙ্গে, নূতন নাটে— আয় রে ক্ষুদ্র সোনার তরী, আমার ভাঙ্গ বিজন ঘাটে । কোথা হ’তে সোনার লতা, লতিয়ে লতিয়ে আসিস বুকে— রাশি রাশি ফুলের হাসি, ফুলের গন্ধ মাখিয়ে মুখে । কচি কচি কোকড়ান চুল চোখে মুখে বাপিয়ে পড়ে ; পাহাড়-পাশে ঝরণা যেন, আছিস বিভোর আপন স্বরে । দূর আকাশের স্বপন কত চোখের ভিতর ঘুমিয়ে আছে— চাইলে ভয়ে চমকে পলায় শুকতারাটা মেঘের কাছে । বুকে দলি, কোলে তুলি, তবু তিয়াষ নাহি পুরে— কোথায় রাখি—কোথায় রাখি, বঁাশী যেন বাজছে দূরে । পরাণ-পাখী ছড়িয়ে পাখী কোথায় উড়ে যেতে চায়— কোন স্বরগের শু্যামল রেখা, দূরে ঈষৎ দেখা যায়। ঘুমায় নিথর চাদের আলো শিবালয়ের স্বর্ণচড়ে ; ঘুমের ঘোরে ডাকে কোকিল—কুঞ্জে কুঞ্জে করুণ সুরে । এসেছিস কি সন্ধ্যাসতী, মরুভূমে রোদের পরে— আশার আভাস, স্মৃতির উছাস, প্রেমের সুবাস বুকে করে । শীতের পরে ভাঙ্গ ঘরে এসেছিস কি মধু-রাণী— কচি ফুট বাহু-লতায় ছাইতে ভাঙ্গ চালাখানি । এসেছিস কি শুকে দেশে নুতন ভাঙ্গা-মেঘের রাশি । তুই কি আমার উঠিস ফুটে বাদলা-মেঘে উষার হাসি সেই হাসিটা, সেই দিঠিট, একটু যেন মধুর বেশি। একটু বেশি আকুল-ব্যাকুল, একটু অধিক মেশামেশি । তেমনি অধর একটুকুতেই মানের ভরে কতই রাঙ্গ— অশ্রুভর। নয়ন ঘটী, শ্বাসে বচন ভাঙ্গা-ভাঙ্গ । অায় রে গত-মুখের স্বপন, সাঝের মেঘে সোনার হাসি— জীবন-ভরা নবীন হৃদয়, কানন-ভরা কুস্থমরাশি ।