পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/২৮৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৮২৮ সালে ‘সমাচার দপণে কোন সভ্যতা কাটনী সীলোক নিম্নলিখিত পরখানি fæfei...fæTAF :—(v) (৫ই জানুয়ারী ১৮২৮ । ২২ পৌষ ১২৩৪) চরকাকাটনির দরখাস্ত —শ্ৰীযন্ত সমাচার পত্রকার মহাশয়। আমি সীলোক অনেক দুখ পাইয়া এক পত্র প্রস্তুত করিয়া পাঠাইতেছি আপনারা দয়া করিয়া আপনারদিগের আপন ২ সমাচারপত্রে প্রকাশ করিবেন শুনিয়াছি ইহা প্রকাশ হইলে দুঃখ নিবারণকতারদিগের কণগোচর হইতে পারিবেক তাহা হইলে আমার মনস্কামনা সিদ্ধ হইবেক অতএব আপনারা আমার এই দরখাস্তপত্র দুঃখিনী সত্রীর লেখা জানিয়া হেয়ঙ্কান করিবেন না। আমি নিতান্ত অভাগিনী আমার দুঃখের কথা তাবৎ লিখিত হইলে অনেক কথা লিখিতে হয় কিন্তু কিছু লিখি আমার যখন সাড়ে পাঁচ গণ্ডা বয়স তখন বিধবা হইয়াছি কেবল তিন কন্যা সন্তান হইয়াছিল। বন্ধ বশর শাশড়ী আর ঐ তিনটি কন্যা প্রতিপালনের কোন উপায় রাখিয়া স্বামী মরেন নাই তিনি নানা ব্যবসায়ে কালষাপন করিতেন আমার গায়ে যে অলঙ্কার ছিল তাহা বিক্লয় করিয়া তাঁহার শ্রাদ্ধ করিয়াছিলাম শেষে অন্নাভাবে কএক প্রাণী মারা পড়িবার প্রকরণ উপস্থিত হইল তখন বিধাতা আমাকে এমত বন্ধি দিলেন যে ষাহাতে আমারদিগের প্রাণ রক্ষা হইতে পারে অথাৎ আসনা ও চরকায় সন্তা কাটিতে আরম্ভ করিলাম প্রাতঃকালে গহকম অথাৎ পাটি ঝাটি করিয়া চরকা লইয়া বসিতাম বেলা দই প্রহরপর্যন্ত কাটনা কাটিতম প্রায় এক তোলা সন্তা কাটিয়া নানে যাইতাম নান করিয়া রন্ধন করিয়া বশর শাশড়ী আর তিন কন্যাকে ভোজন করাইয়া পরে আমি কিছু খাইয়া সর টেকো লইয়া আসনা সতো কাটিতাম তাহাও প্রায় এক তোলা আন্দাজ কাটিয়া উঠিতাম এই প্রকারে সন্তা কাটিয়া তাঁতিরা বাটিতে আসিয়া টাকায় তিন তোলার দরে চরকার সন্তা আর দেড় তোলার দরে সর আসনা সভ্যতা লইয়া যাইত এবং যত টাকা আগামি চাহিতাম তৎক্ষণাৎ দিত ইহাতে আমারদিগের অন্ন বসের কোন উদ্বেগ ছিল না পরে ক্লমে২ ঐ কমে বড়ই নিপুণ হইলাম কএক বৎসরের মধ্যে আমার হাতে সাত গণ্ডা টাকা হইল এক কন্যার বিবাহ দিলাম ঐ প্রকার তিন কন্যার বিবাহ দিলাম তাহাতে কুটুম্ববতার যে ধারা আছে তাহার কিছু অন্যথা হইল না রাঁড়ের মেয়া বলিয়া কেহ ঘণা করিতে পারে নাই কেননা ঘটক কুলীনকে যাহা দিতে হয় সকলি করিয়াছি তৎপরে বশরের কাল হইল তাঁহার শ্রাধে এগার গণ্ডা টাকা খরচ করি তাহা তাঁতরা আমাকে কজ দিয়াছিল দেড় বৎসরের মধ্যে তাহা শোধ দিলাম কেবল চরকার প্রসাদাং এতপৰ্যন্ত হইয়াছিল এক্ষণে তিন বৎসরাবধি দই শাশড়ী বধর অন্নাভাব হইয়াছে সন্তা কিনিতে তাঁত বাটীতে আসা দরে থাকুক হাটে পাঠাইলে পবাপেক্ষা সিকি দরেও লয় না ইহার কারণ কি কিছ বঝিতে পারি না অনেক লোককে জিজ্ঞাসা করিয়াছি অনেকে কহে যে বিলাতি সন্তার আমদানি হইতেছে সেই সকল সন্তা তাঁতরা কিনিয়া কাপড় বনে। আমার মনে অহঙ্কার ছিল যে আমার যেমন সতা এমন কখনও বিলাতি সন্তা হইবেক না পরে বিলাতি সন্তা আনাইয়া দেখিলাম আমার সতাহইতে ভাল বটে তাহার দর শানিলাম ৩। ৪ টাকা করিয়া সের আমি (৬) দরিদ্র স্মীলোকটি এই ধারণা হইতে পত্র লিখিয়াছিলেন যে, বিলাতী আমদানী সতা ಶ್ಗರ್ ಕ್' তিনি বনেও ভাবিতে পারেন নাই যে, ঐ সব সভ্যতা বাপশক্তি কলে |