পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আমার পিতামহের শ্রান্ধে, পাবস্থ গ্রামের বহলোক ঐ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে অস্বীকার করিল; কেননা, আমার পিতা তাহদের মতে লেছ’ হইয়া গিয়াছিলেন। এমন কথাও প্রচারিত হইল যে, জনৈক প্রতিবাসীর হারাণো বাছরেটিকে প্রকৃতপক্ষে হত্যা করিয়া চপ কাটলেট ইত্যাদি সখাদ্য রন্ধনপবেক টেবিলে পরিবেষণ করা হইয়াছে। সাতক্ষীরার জমিদার উমানাথ রায় একটা ছড়া বধিয়াছিলেন, তখনকার দিনে ঐ ছড়া খাব লোকপ্রিয় হইয়াছিল। ছড়ার প্রথম অন্তরাটি এইরুপঃ– “হা কৃষ্ণ, হা হরি, এ কি ঘটাইল, রাড়ালি টাকার (৪) ন্যায় দেশ মজাইল।” 8) টাকার (২৪ পরগণা) কালীনাথ মূল রামমোহন রায়ের সঙ্কোর আন্দোলনের একজন সমর্থক ছিলেন এবং সেই কারণে গ্রামের গোঁড়ারা তাঁহার উপর খল-হস্ত ছিল।