পাতা:আনন্দমঠ - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


「 - 。** 。--。 প্রথম খণ্ড-দ্বাদশ পরিচ্ছেদ • “হয়ে মুরারে মধুকৈটভারে। গোপাল গোবিন্দ মুকুল শৌরে।" _ কল্যাণীর তখন বিষ ধরিয়া আসিতেছিল, চেতন কিছু অপহৃত হইতেছিল ; তিনি মোহভরে শুনিলেন, যেন সেই বৈকুণ্ঠে গ্রুত অপূৰ্ব্ব বংশীধ্বনিতে বাজিতেছে — “হরে মুরারে মধুকৈটভারে। গোপাল গোবিন্দ মুকুন্দ শৌরে।” তখন কল্যাণী অন্সরোনিন্দিত কণ্ঠে মোহভরে ডাকিতে লাগিলেন, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।” মহেশ্রকে বলিলেন, “বল, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।" কানননির্গত মধুর স্বর আর কল্যাণীর মধুর স্বরে বিমুগ্ধ হইয়া কাতরচিত্তে ঈশ্বর । মাত্র সহায় মনে করিয়া মহেন্দ্রও ডাকিলেন, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।” তখন চারি দিকৃ হইতে ধ্বনি হইতে লাগিল, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।” তখন যেন গাছের পাখীরাও বলিতে লাগিল, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।” নদীর কলকলেও যেন শব্দ হইতে লাগিল, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।" তখন মহেন্দ্র শোকতাপ ভুলিয়া গেলেন—উন্মত্ত হইয়া কল্যাণীর সহিত একতালে ডাকিতে লাগিলেন, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।” কানন হইতেও যেন ভঁাহাদের সঙ্গে একতানে শব্দ হইতে লাগিল, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।” কল্যাণীর কণ্ঠ ক্রমে ক্ষীণ হইয়া আসিতে লাগিল, তবু ডাকিতেছেন, “হরে মুরারে মধুকৈটভারে।”