পাতা:আনন্দমঠ - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


---------- ** 。エリー-ア・ "・_* リ ー エ --- o, o ... g.o. o.o.o. « , ,دُ "-*چ... -- . ....:"... , প্রথম খণ্ড—জুয়োদশ পরিচ্ছেদ . ده সেই কৃষ্ণ কঙ্গোলিনী জুত্র নদীতীরে সেই পথের ধারেই বৃক্ষতলে নদীতটে কল্যাণী পড়িয়া আছে, মহেন্দ্র ও সত্যানন্দ পরস্পরে আলিঙ্গন করিয়া সাঞ্জলোচনে ঈশ্বরকে ডাকিতেছেন, নজরদী জমাদার সিপাহী লইয়। এমন সময়ে সেইখানে উপস্থিত। একেবারে সত্যানন্দ্রের গলদেশে হস্তার্পণপূর্বক বলিল, “এই শাল সন্ন্যাসী।” আর এক জন অমনি মহেশ্রকে ধরিল—কেন না, যে সন্ন্যাসীর সঙ্গী, সে অবশু সন্ন্যাসী হইবে। আর এক জন শম্পোপরি লম্বমান কল্যাণীর মৃতদেহটাও ধরিতে যাইতেছিল। কিন্তু দেখিল যে, একটা স্ত্রীলোকের মৃতদেহ, সন্ন্যাসী না হইলেও হইতে পারে। আর ধরিল না । বালিকাকেও ঐরূপ বিবেচনায় ত্যাগ করিল। পরে তাহারা কোন কথাবার্তা না বলিয়া দুই জনকে বঁাধিয়া লইয়া চলিল। কল্যাণীর মৃতদেহ আর তাহার বালিকা কস্তা বিনা রক্ষকে সেই বৃক্ষমূলে পড়িয়া রহিল। প্রথমে শোকে অভিভূত এবং ঈশ্বরপ্রেমে উন্মত্ত হইয়৷ মহেন্দ্র বিচেতনপ্রায় ছিলেন। . কি হইতেছিল, কি হইল বুঝিতে পারেন নাই, বন্ধনের প্রতি কোন আপত্তি করেন নাই, কিন্তু দুই চারি পদ গেলে বুঝিলেন যে, আমাদিগকে বাধিয়া লইয়া যাইতেছে। কল্যাণীর শব পড়িয়া রহিল, সৎকার হইল না, শিশুকন্যা পড়িয়া রহিল, এইক্ষণে কাহাদিগকে হিংস্র জন্তু খাইতে পারে, এই কথা মনোমধ্যে উদয় হইবামাত্ৰ মহেন্দ্র দুইটি হাত পরস্পর হইতে ' বলে বিশ্লিষ্ট করিলেন, এক টানে বঁাধন ছিড়িয়া গেল। সেই মুহুর্তে এক পদাঘাতে জমাদার সাহেবকে ভূমিশয্যা অবলম্বন করাইয়া এক জন সিপাহীকে আক্রমণ করিতেছিলেন । তখন অপর তিন জন তাহাকে তিন দিকৃ হইতে ধরিয়া পুনৰ্ব্বার বিজিত ও নিশ্চেষ্ট করিল। তখন দুঃখে কাতর হইয়৷ মহেন্দ্র সত্যানন্দ ব্রহ্মচারীকে বলিলেন যে, “আপনি একটু সহায়তা করিলেই এই পাচ জন রাত্মাকে বধ করিতে পারিতাম।” সতানন্দ বলিলেন, “আমার এই প্রাচীন শরীরে বল কি—আমি ধাহাকে ডাকিতেছিলাম, তিনি ভিন্ন আমার আর বল নাই—তুমি, যাহা অবশু ঘটিবে, তাহার বিরুদ্ধাচরণ করিও না। আমরা এই পাঁচ জনকে পরাভূত করিতে পারিব না। চল, কোথায় লইয়া যায় দেখি। জগদীশ্বর সকল দিক্ রক্ষা করিবেন।” তখন র্তাহারা দুই জনে আর কোন মুক্তির চেষ্টা না করিয়া সিপাহীদের পশ্চাৎ পশ্চাৎ চলিলেন । কিছু দূর গিয়া সত্যানন্দ সিপাহীদিগকে জিজ্ঞাসা করিলেন, “বাপু, আমি হরিনাম করিয়া থাকি—হরিনাম করার কিছু বাধা আছে " সত্যানন্দকে ভালমানুষ বলিয়া জমাদারের বোধ হইয়াছিল, সে বলিল, “তুমি হরিনাম কর, তোমায় বারণ করিব না। তুমি বুড়া ব্রহ্মচারী, বোধ হয় তোমার খালাসের