পাতা:আনন্দমঠ - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* sv * । षां : : স্বখ, তেমনি সে রূপরাশিতে অনিৰ্ব্বচনীয় কি ছিল! অনিৰ্ব্বচনীয় মাধুৰ্য্য, অনিৰ্ব্বচনীয় উল্পতভাব, অনিৰ্ব্বচনীয় প্রেম, অনিৰ্ব্বচনীয় ভক্তি। সে হাসিতে হাসিতে ( কেহ সে হাসি দেখিল না ) হাসিতে হাসিতে সেই ঢাকাই শাড়ী বাহির করিয়া দিল। বলিল, “কি লে৷ নিমি,কি হইবে ? নিমাই বলিল, “তুই পর্বি।” সে বলিল, “আমি পরিলে কি হইবে ?” তখন নিমাই তাহার কমনীয় কণ্ঠে আপনার কমনীয় বাহু বেষ্টন করিয়া বলিল, “দাদা এসেছে, তোকে যেতে বলেছে।” সে বলিল, “আমায় যেতে বলেছেন । ত ঢাকাই শাড়ী কেন ? চল না এমনি যাই ।” নিমাই তার গালে এক চড় মারিল—সে নিমাইয়ের কাধে হাত দিয় তাহাকে কুটীরের বাহির করিল। বলিল, “চল, এই ন্যাকৃড়া পরিয়া র্তাহাকে দেখিয়া আসি।” কিছুতেই কাপড় বদলাইল না, অগত্য নিমাই রাজি হইল। নিমাই তাহাকে সঙ্গে লইয়া আপনার বাড়ীর দ্বার পর্য্যস্ত গেল, গিয়া তাহাকে ভিতরে প্রবেশ করাইয়া দ্বার রুদ্ধ করিয়া আপনি দ্বারে দাড়াইয়া রহিল । ষোড়শ পরিচ্ছেদ সে স্ত্রীলোকের বয়স প্রায় পচিশ বৎসর, কিন্তু দেখিলে নিমাইয়ের অপেক্ষা অধিকবয়স্ক বলিয়া বোধ হয় না। মলিন, গ্রন্থিযুক্ত বসন পরিয়া সেই গৃহমধ্যে প্রবেশ করিলে, বোধ হইল যেন, গৃহ আলো হইল। বোধ হইল, পাতায় ঢাকা কোন গাছের কত ফুলের কুঁড়ি ছিল, হঠাৎ ফুটিয়া উঠিল ; বোধ হইল যেন, কোথায় গোলাপজলের কার্ব মুখ আঁটা ছিল, কে কাৰ্ব্বা ভাঙ্গিয়া ফেলিল । যেন কে প্রায় নিবান আগুনে ধুপ ধুন। গুগগুল ফেলিয়া দিল। সে রূপসী গৃহমধ্যে প্রবেশ করিয়া ইতস্ততঃ স্বামীর অন্বেষণ করিতে লাগিল, প্রথমে ত দেখিতে পাইল না । তায় পর দেখিল, গৃহপ্রাঙ্গণে একটি ক্ষুদ্র বৃক্ষ আছে, আম্রের কাণ্ডে মাথা রাখিয়া জীবানন্দ কঁাদিতেছেন। সেই রূপসী তাহার নিকটে গিয়া ধীরে ধীরে তাহার হস্তধারণ করিল। বলি না যে, তাহার চক্ষে জল আসিল না, জগদীশ্বর জানেন যে, তাহার চক্ষে যে স্রোতঃ আসিয়াছিল, বহিলে তাহা জীবানন্দকে ভাসাইয়া দিত ; কিন্তু সে তাহ বহিতে দিল না । জীবানন্দের হাত হাতে লইয়া বলিল, “ছি, কঁাদিও না ; আমি জানি, তুমি আমার জন্য র্কাদিতেছ, আমার জন্য তুমি কাদিও না-— তুমি যে প্রকারে আমাকে রাখিয়াছ, আমি তাহাতেই সুখী |"