পাতা:আনন্দমঠ - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৭৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(to আনন্দমঠ রীরধৰ্ম্ম কখন ত্যাগ করিও না । দেখ—আমাকে একটা কথা বলিয়া যাও—এ ব্ৰতভঙ্গের প্রায়শ্চিত্ত কি ?” জীবানন্দ বলিলেন, “প্রায়শ্চিত্ত্ব—দান—উপবাস—২২ কাহণ কড়ি ।” শাস্তি ঈষৎ হাসিল । বলিল, “প্রায়শ্চিত্ত কি, তা আমি জানি। এক অপরাধে যে প্রায়শ্চিত্ত—শত অপরাধে কি তাই ?” জীবানন্দ বিস্মিত ও বিষণ্ণ হইয়া জিজ্ঞাসা করিল, “এ সকল কথা কেন ?” শাস্তি। এক ভিক্ষা আছে। আমার সঙ্গে আবার দেখা ন হইলে প্রায় ও করিও না । জীবানন্দ তখন হাসিয়া বলিল, “সে বিষয়ে নিশ্চিন্ত থাকিও । তোমাকে না দেয়া আমি মরিব না। মরিবার তত তাড়াতাড়ি নাই। আর আমি এখানে থাকিব না, f" চোখ ভরিয়া তোমাকে দেখিতে পাইলাম না, এক দিন অবশু সে দেখা দেখিব। এক দিন অবশ্ব আমাদের মনস্কামনা সফল হইবে । আমি এখন চলিলাম, তুমি আমার এক অনুরোধ রক্ষা করিও। এ বেশভূষা ত্যাগ কর। আমার পৈতৃক ভিটায় গিয়া বাস কর।” শাস্তি জিজ্ঞাসা করিল, “তুমি এখন কোথায় যাইবে ?” জীবা । এখন মঠে ব্ৰহ্মচারীর অনুসন্ধানে যাইব । তিনি যে ভাবে নগরে গিয়াছেন, তাহাতে কিছু চিস্তাযুক্ত হইয়াছি ; দেউলে তাহার সন্ধান না পাই, নগরে যাইব । সপ্তদশ পরিচ্ছেদ ভবানন্দ মঠের ভিতর বসিয়া হৰিগুণ গান করিতেছিলেন । এমত সময়ে যি মুখে জ্ঞানানন্দনামা এক জন অতি তেজস্বী সপ্তান তাহার কাছে আসিয়া উপস্থিত হইলেন । ভবানন্দ বলিলেন, “গোসাই, মুখ অত ভারি কেন ?” জ্ঞানানন্দ বলিলেন, “কিছু গোলযোগ বোধ হইতেছে। কালিকার কাগুটার জন্য নেড়ের গেরুয়া কাপড় দেখিতেছে, আর ধরিতেছে । অপরাপর সস্তানগণ আজ সকলেই গৈরিক বসন ত্যাগ করিয়াছে। কেবল সত্যানন্দ প্ৰভু গেরুয়া পরিয়া একা নগরাভিমুখে গিয়াছেন। কি জানি, যদি তিনি মুসলমানের হাতে পড়েন ।”