পাতা:আমার বাল্যকথা ও আমার বোম্বাই প্রবাস.pdf/২১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আমার বোম্বাই প্রবাস &సి পরায়ণ হিন্দুসৈন্তগণের পশ্চাতে মুসলমানের ধাবমান হুইয়া তাহীদের ছিন্নভিন্ন করিয়া দিল। এই তালিকোটের যুদ্ধ। এই যুদ্ধে দুপক্ষের লোক মিলিয়া সমরক্ষেত্রে নুনাধিক দুই লক্ষ সেনার সম্মিলন হয়। হিন্দুসৈন্ত বিস্তর মারা পড়ে এবং বিজয়ীদের লুণ্ঠনজাত প্রচুর ধনরত্ন লাভ হয়। অতঃপব বিজয়ী সেনাগণ বিজয়নগবে প্রবেশপূৰ্ব্বক নগরমধ্যে জয়পতাকা উড্ডীন করিল। সেখানকাব লুটপাটেৰ ব্যাপাব বর্ণনাতীত । নগরের বাড়ী ঘর দুয়ার লগুভগু—হিন্দু কীৰ্ত্তির চিহ্ন সকল চকিতের মধ্যে বিলুপ্ত হইল । রামরায়ের ছিন্নমুণ্ড জয়স্তম্ভস্বরূপ আহমদনগরে প্রেরিত ও তাহার এক প্রস্তর প্রতিমা বিজাপুরে স্থাপিত হয়। এই প্রস্তর মুণ্ড আর্ক কেল্লায় সেদিন পর্য্যন্ত অনেকে দেখিয়াছেন। তালিকোটের যুদ্ধেই বিজয়নগবের ধ্বংস। এই যে তাহার পতন হইল আর তাহার উখানশক্তি রহিল না। দক্ষিণের স্বাধীন হিন্দুরাজ্য চিরকালের মত প্ৰলয়সাগরে ডুবিয়া গেল । ১৫৮• অব্দে আলির মৃত্যু হয়। ইমারত নিৰ্ম্মাণে র্তাহার বিশেষ উৎসাহ ছিল। জুম্মা মসজিদ, তাজ, বাউড়া, সহরের প্রাচীর, জলপ্রণালী প্রভৃতি অনেক জিনিস র্তাহার সময়কাব। ইহার রাজত্বেব শেষভাগে দিল্লীশ্বর আকবর প্রেরিত কয়েকজন দূত বিজাপুরে আগমন করেন, তাহদের কি গূঢ় অভিপ্রায় ছিল প্রকাশ পায় নাই। মোগলের গুপ্তচরের বিজাপুরের উপর সেই যে শনির দৃষ্টি নিক্ষেপ করিয়া গেল, অচিরাং তাহার গরল ফল ফলিত হইল। ● আলির উত্তরাধিকারী দ্বিতীয় ইব্রাহিম । পিতৃব্যের মৃত্যুকালে তাহার বয়ঃক্রম নয় বৎসর মাত্র। র্তাহার নাবালক অবস্থায় আলির মহিষী চাদবিবি রাজ্যভার গ্রহণ করেন। কমাল খ! সচিব প্রধান, কমাল খার বিদ্রোহ চেষ্টা প্রকাশিত হওয়াতে চাদবিবি তাহার প্রাণদণ্ডের আদেশ করেন। তাহার পরে কিশোর খা প্রধান পদে আরূঢ় হইয়া চাদবিবির শক্র হষ্টয়া দাড়াইলেন ও ছলে বলে কৌশলে রাজ্ঞীকে সাতারার দুর্গে নিৰ্ব্বাসিত করিলেন। মন্ত্রীকে শীঘ্রই এই অত্যাচারের ফলভোগ করিতে হইল। চাদবিবি স্বপক্ষীয় সৈন্ত সাহায্যে বন্ধনমুক্ত হইলেন, কিশোর খাঁ প্রাণভয়ে পলায়নানন্তর গোলকুণ্ডার একজন হস্তারকের হস্তে মারা পড়িলেন। অতঃপর মন্ত্ৰী দিলাবর খ দক্ষতা ও বিজ্ঞতার সহিত কয়েক বৎসর রাজ্য শাসন করেন । র্তাহার সুশাসনে রাজ্যের শ্ৰীবৃদ্ধি সম্পাদন হইল। তিনি আহমদনগর ও গোলকুণ্ডার স্বলতানের সহিত সন্ধি স্থাপন করিলেন এবং গোলকুণ্ডা-মুলতানের ভগিনী চাদ সুলতানার সহিত ইব্রাহিমের বিবাহ দিয়া দিলেন। দিলাবর র্থ ইব্রাহিম বাদসাহের প্রিয়পাত্র ছিলেন না । মন্ত্রীর অধীনতা সহ করিতে না পারিয়া রাজা ঠাহার বিরুদ্ধে অভিযোগ করিলেন এবং উহাকে