পাতা:আর্য্য-নারী দ্বিতীয় ভাগ.djvu/৩৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

R আর্য্য-নারী । আকাঙক্ষণ নিবৃত্ত হওয়া দূরে থাক, শতগুণে বাড়িল। কিন্তু পদ্মিনীকে পাইবার উপায় কি ? মনে মনে এক ভীষণ দুরভিসন্ধি করিয়া, যাইবার সময় তিনি এই সহৃদয়তার প্রতিদান স্বরূপ ভীমসিংহকে নিজ শিবিরে যাইবার জন্য নিমন্ত্রণ করিলেন । সরল হৃদয় ভীমসিংহ আপত্তি না করিয়া আলউদিনের শিবিরে গমন করিলেন । আলাউদ্দিন তাহাকে বন্দী করিয়া ঘোষণা করিলেন, পদ্মিনীকে না পাইলে তিনি ভীমসিংহকে মুক্তি দিবেন না। ( R ) পদ্মিনী যথাসময়ে এ সংবাদ শুনিলেন। চিতোরের রাজকুলবধূর সম্মান রক্ষার জন্য চিতোরবাসী প্রাণপণ করিবে তাহা তিনি জানিতেন। চিতোরবাসীর প্রাণপণ চেষ্টা বিফল হইলেও, চিন্তানলে দেহ বিসৰ্জন করিয়াও তিনি তাহার নারীধর্ম্ম রক্ষা করিতে পারিবেন । সুতরাং এজন্য তঁাহার কোন ভয় নাই। কিন্তু ভীমসিংহকে রক্ষা করার উপায় কি ? ধর্ম্মরক্ষার জন্য, দেশরক্ষার জন্য সমরক্ষেত্রে শত্রুর অসিতে দেহদান ক্ষত্রিয়বীরের শ্রেষ্ঠ গতি। স্বামীর কুলধর্ম্মোচিত এমন গতিলাভে পদ্মিনী কখনো কুষ্ঠিত হইতে পারেন না। কিন্তু মহাবীর স্বামী যে, বিশ্বাসহন্ত আততায়ীর হস্তে হীনভাবে নিহত হইবেন, এ চিন্তা পদ্মিনীর অসহ্য হইল। সামান্য রমণীর ন্যায়, বিপদে অস্থির না হইয়া ধীরচিত্তে তিনি স্বামীর উদ্ধারের উপায় চিন্তা করিতে লাগিলেন ।