পাতা:ইন্দুমতী - যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
২১
তৃতীয় সর্গ।

ডুবিলেন দুইজনে। বঁচিলেন তিনি,
কিন্তু হায়! কিবা হ’ল পতির তাঁহার।
 রাণীমা শুনিয়া পরে ইন্দু পরিচয়,
সুখ দুঃখ পূর্ণ তার জীবন কাহিনী,
দেখিয়া তাহার মন উন্নত পবিত্ৰ,
দয়া মায়া স্নেহ পূর্ণ কোমল হৃদয়;
সরমে জড়িত তার মধুর স্বভাব,
সর্ব্ব সুলক্ষণা তারে দেখিয়া রাণীমা,
কেমন অপত্য স্নেহে ভরিল হৃদয়,
হ’লেন জড়িতা তিনি ইন্দুর মায়ায়।
 বুঝিয়া ইন্দুর দুঃখ আদরে রাণীমা
কত ধৰ্ম্ম উপদেশ শিখালেন তারে।
প্রতিভা শালিনী ইন্দু তীক্ষ্ণ মেধাবতী,
শিখিল নারীর আর জীবনের ব্ৰত।
বুঝিতে লাগিল এই সংসারের মায়া,
ঈশ্বরের দয়া, ধৰ্ম্ম, ইহকাল আর,
পরকাল, জন্ম, মৃত্যু, আর জন্মান্তর,
কেমনে রয়েছে বাঁধা কৰ্ম্মফল সাথে।
গভীর রহস্য কত শাস্ত্ৰ উপদেশ,
শিখিলেন একে একে রাণীমা নিকটে।
 দীক্ষিতা হইয়া ইন্দু রাণীমা নিকটে
রাণীমার মত হ’য়ে সংসারে তাপসী।