পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র - পঞ্চম পর্য্যায়.pdf/৪৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বগুড়া জেলার ঐতিহাসিক উপকরণ । Ꮼ☾ ১ । খেরুয়া মসজিদ। ২ । তুরকান সাহেবের শির মোকাম । ৩ । তুরকান সাহেবের ধর মোকাম।। ৪ । মিঞা কৰ্ণ গাজি মিঞার থান। ৫ । হটলার থান। ৬। বুড়া বা সাবুদ্দি বা লেপা মাদারের · 1 1 F1 1府IC3 이R I 虫 > । 6थझश्। भडिल। মসজিদটীর “খেরুয়া মসজিদ” নাম কেন হইল জানা যায় না। আমি এবং সেরপুরের সবরেজেষ্টার মুন্সী শ্ৰীযুক্ত কোরবান উল্লা সাহেব দুইজনে মিলিয়া মসজিদসংলগ্ন পারস্য ভাষায় লিখিত শিলালিপি দুইখানির ছাপ কাগজে তুলি। সেই ছাপের এক প্ৰস্থ সবরেজিষ্টার সাহেব কলিকাতায় ডাক্তার রস সাহেবের নিকট পাঠোদ্ধারার্থ পাঠান ; ডাক্তার রস যথাসাধ্য পাঠোদ্ধার করিয়া যে মান্ত পা করিয়াছেন, তাহা নিয়ে লিখিত তইল । সেরপুরের মসজিদের শিলালিপি । পূৰ্ব্ব বাঙ্গালার জনৈক ভদ্রলোক আমাদিগকে দুইটা প্ৰস্তর লিপির ছাপ পাঠাইয়াছিলেন এবং তৎসম্বন্ধে আমাদিগের অভিমত জানিবার নিমিত্ত প্রার্থনা করিয়াছিলেন । দুৰ্ভাগ্যবশতঃ তাহার অনেকগুলি কথা অস্পষ্ট ও দুৰ্ভেদ্য । ইহার কারণ এই যে, সেইগুলি ঠিক বৈজ্ঞানিক উপায়ে তোলা হয় নাই। তথাপি আমরা বিশ্বাস করি যে, আমরা সেই মসজিদের নিৰ্ম্মাতার নাম এবং উহা নিৰ্ম্মাণের তারিখ ও অনেকগুলি অবশ্যকীয় বিষয় উদ্ধার করিতে সমর্থ হইয়াছি। উক্ত ভদ্রলোক আমাদিগকে জানাইয়া ছিলেন যে, সেই প্ৰস্তর লিপি বগুড়া জেলার অন্তৰ্গত সেরপুরের নিকটে এক জঙ্গলে অবস্থিত ভগ্ন মসজিদ হইতে পাওয়া গিয়াছে। কিন্তু সেই মসজিদের গঠনপ্রণালী SEEEEDBDDD BDBK BDDtBBDS KDD DDD S BuD S tD DBDDSLS