পাতা:কবিকঙ্কণ-চণ্ডী (প্রথম ভাগ) - চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


( & কবিকঙ্কণ-চণ্ডী লিঙ্গপুৰাণ ( ১৭ অধ্যায়) শিবকে বলিতেছেন—“তুমি রুদ্ররূপী অগ্নি, এবং সেইজন্য তোমাব দেহ ভস্মলিপ্ত ।” বেদেব রুদ্ররূপী অগ্নি যে শিব হইয়াছেন তাব চিহ্ন আছে তীব ভস্মলেপনে ও নীললোহিত নীলকণ্ঠ প্ৰভৃতি নামে ও গুণে । নীলকণ্ঠ বজাতগিরিনির্ভ শিব। আবার খানিকটা তুষাবধবল হিমালয়েব দেবত্ব আত্মসাৎ কবিয়াছেন ; হিমালয়পৰ্ব্বতেব শুভ্ৰ বিবাট দেহেব কণ্ঠসানুতে নীলমেঘ সঞ্চবাণ কবে, তাহা হইতে ত্ৰিশূলেব ন্যায় বিদ্যুৎ স্ফুবিত হয়-দেখিয়া কবিকল্পনায় নীলকণ্ঠ শূলপাণি শিব আবিভূতি হইয়াছিলেন , শিবেব বাসভূমি হিমালয়, শ্বশুবালয় হিমালয়, স্বয়ং শ্বশুব হিমালয়, গৃহিণী পাৰ্ব্বতী, পুত্ৰ গুহ, তীব জটাজালে গঙ্গা-এ একেবাবে হিমালয়ের রূপক বলিয়াই অনুমান হয়। গঙ্গা ও উমা দুজনেই হিমালয়-দুহিতা । দীক্ষায়ণী সতী দেহত্যাগ কবিয়া হিমালয়মহিষী মেনকাব গর্ভে গঙ্গা ও উমা রূপে জন্মগ্রহণ কবেন । শিব উভয়কেই বিবাহ কবিয়া গঙ্গাকে মস্তকে ও পাৰ্ব্বতীকে বামাঙ্গে ধাবণ কবেন ( বৃহদ্ধৰ্ম্মপুবাণ ) । এই আখ্যায়িক পববৰ্ত্তী কালে ধৰ্ম্মসম্প্রদায়েব প্ৰতিদ্বন্দুিতাব সময়ে পবিবৰ্ত্তিত হইয়া যায় । কেউ বলেন ভগীবথেবা স্তবে এবং কেউ বলেন স্বয়ং শিবেবই হবি গুণগানে দ্রব বিষ্ণুব পদসংস্কৃত গঙ্গা বিগলিত হইয়া পড়িলে বিষ্ণুভক্ত শিব সেই বিষ্ণুচবণামৃত বিষ্ণুপাদোদক মস্তকে ধাবণ কবেন (ব্ৰহ্মবৈবৰ্ত্তপুৰাণ ) । ইহাব মধ্যেও একটু প্ৰাকৃতিক রূপক আছে, বেদে দেখা যায় বিষ্ণু মানে সুৰ্য্য-বিষ্ণু ত্ৰিবিক্রম, তিনি ত্রিপাদক্ষেপে প্ৰাতঃ মধ্যাহ্ন ও সন্ধ্যায় ত্ৰিলোককে অতিক্রম করেন ; সেই বিষ্ণু বা সূৰ্য্য দ্বাবা হিমালয়েব তুষাব বিগলিত হওয়াতে গঙ্গাৰ উৎপত্তি ও হিমালয় হইতে গঙ্গাব অবতবণ। গঙ্গাকে মস্তকে ও পাৰ্ব্বতীকে বামাঙ্গে ধাবণেব মধ্যেও প্ৰাকৃতিক রূপকেব৷ আভাস পাওয়া যায়। পাৰ্ব্বতী আগে কালী ছিলেন, পাবে গৌবী হন , হিমালয়েব অঙ্গে কালো মেঘ সংলগ্ন হইয়া শুভ্ৰ তুষাবে পৰিণত হওয়াব ছবি হইতে অৰ্দ্ধনাৰীশ্বব রূপ কল্পনা কবি হইয়াছিল। লিঙ্গপুরাণে ও কালিকাপুবাণে অৰ্দ্ধনাৰীশ্বব-মুঠি ধাবণের যে আখ্যায়িকা আছে তাহা স্ত্রীপুরুষেব আসক্তির রূপক মাত্র। কালিকাপুবাণে অপর একটি উপাখ্যান আছে।-একদিন সুন্দৰী অঙ্গরার শিবপাৰ্ব্বতীব সঙ্গে সাক্ষাৎ কবিতে কৈলাসে আসে, সেইসব সুবসুন্দৰীদের সম্মুখে শিব ভিন্নাঞ্জনশ্যামলা পত্নীকে বাবাম্বােব কালী কালী বলিয়া সম্বোধন করাতে কালী অপমান বোধ করিয়া কুপিতা চন। কালী মনের খেদে তপস্যায় প্ৰবৃত্ত হইলেন ও ব্ৰহ্মার বাবে গৌরী হইলেন। বাড়ী ফিবিয়া আসিয়া পাৰ্ব্বতী স্ফটিকগৌৰ শিবের বিশাল মুকুরবৎ বক্ষে নিজের গৌরীমূৰ্ত্তির ছায়া দেখিয়া নিজেকে চিনিতে পারেন নাই, মনে করেন-অপর নাৰী শিবের হৃদয়ে রচিয়াছে; এতে গৌরী ক্রুদ্ধ হইয়া