পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/৯০৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পঞ্চবিংশ অধ্যায়। bجون س দী অন্ধে এই বাড়ীটার অবস্থা অতি শোচনীয় হইয়া পড়ে। এবং ঃেমান লাট-প্রাসাদের সান্নিধ্যে, তৃতীয় লাট-প্রাসাদ নিৰ্ম্মিত হয়। ইহা "কিং-হাম-হাউস” বলিয়া সেকালের লোকের নিকট পরিচিত ছিল । বর্তমান ট্রেজারি এবং এই তৃতীয় প্রাসাদ ও ইম্পিরিয়াল-অফিস সমূহের পার্থেই লাট-সাহেবের নূতন প্রাসাদ নিৰ্ম্মিত হইয়াছিল্প y এই বকিংহাম-হাউসে, বঙ্গের প্রথম গবর্নর-জেনারেল ওয়ারেণ হেষ্টিংস, প্রতিনিধি গবর্ণর স্যর জন ম্যাকফারসন, লর্ড কর্ণওয়ালিশ ও স্যর জন শোর (লর্ড টেইন-মাউথ ) বাস করিয়া গিয়াছেন। হেষ্টিংস সকল সময়ে এই বাড়ীতে থাকিতেন না। পূৰ্ব্বে বলিয়াছি, হেষ্টিংস-স্ট্রীটে, ওয়ারেণ-হেষ্টিংসের আর একটী নিজস্ব বাট ছিল। এই বাটীর কতকাংশ এখনও বৰ্ত্তমান । বৰ্ত্তমানে ইহার বহির্দিকট সম্পূর্ণ নূতন ধরণে প্রস্তুত হইয়াছে। প্রসিদ্ধ বরণকোম্পানীর আফিস, এখন এই বাটতে অবস্থিত। ১৭৭৭ খ্ৰীষ্টাব্দে, ব্যারনেস ইমপ্লফের সহিত বিবাহ হওয়ার পর হইতে, হেষ্টিংস এই বাড়ীতেও মধ্যে মধ্যে বসবাস করিতেন । ইহার পরবর্তীকালে—তিনি সহর ছাড়িয়া, তাহার আলিপুরের বাগান-বাটী, “হেষ্টিংস-হাউসে” বাস করিয়াছিলেন। হেষ্টিংসের এই বাগান-বাটী বৰ্ত্তমান আলিপুর জজ-কাছারির নিকটে আজও “হেষ্টিংসহাউস” বলিয়া পরিচিত। সরকারী কাজ পড়িলে, হেষ্টিংস কলিকাতায় আসিতেন, নচেৎ আলিপুরের নির্জন আবাস-ভবনই তাহার কৰ্ম্মময় জীবনের প্রধান কেন্দ্রস্থল ছিল । কলিকাতা হেষ্টিংস ষ্ট্রীটের এই বাট ছাড়া, ওয়ারেণহেষ্টিংসের নিজের একট প্রাইভেট অফিস-গৃহও কলিকাতা সহরের মধ্যে ছিল। ওল্ডকোট-হাউস ট্রীটের শেষাংশে--যেখানে ইতিপূৰ্ব্বে স্বপ্রসিদ্ধ ঔষধ-বিক্রেতা স্কট টমসন কোম্পানীর কার্য্যালয় ছিল, আর এখন যেখানে "এ গ্রানেড-ম্যানুসন” নামক পাচতলা স্ববৃহৎ বাট নিৰ্ম্মিত হইয়াছে, এই ইনেই গবর্ণর-জেনারেল ওয়ারেণ-হেষ্টিংসের প্রাইভেট-অফিসের সেই পুরাতন বাটিটী অবস্থিত ছিল । স্কটটমসান কোম্পানীর সুবিখ্যাত ডাক্তার ফেরিস, এই বাটীর একটা প্যানেলের কাচের উপর, হেষ্টিংসের নামের শাস্বাক্ষরগুলি স্পষ্ট দেখিয়াছিলেন। কলিকাতার পুরাতন লাট-প্রাসাদটী তদুপযুক্ত জণকালো ছিল না ও ইহার "ধে আরও অনেক ভদ্রলোকের বাড়ীঘর ছিল—যাহা গবর্নর-জেনারেলের *বাস বাটীর অপেক্ষ দেখিতে ভাল। এইজন্স হেষ্টিংস, এইরূপ সামান্থ "ত থাকিতে পছন্দ করিতেন না। অধিকাংশ সময় তিনি আলিপুরেই