পাতা:কাব্যগ্রন্থ (নবম খণ্ড).pdf/৫৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ফাঙ্কনী তাহ’লে, মহারাজ, শ্রুতিভূষণকে ওদের কাছে পাঠিয়ে দিন না—আমরা ততক্ষণ যুদ্ধের পরামর্শটা— না, না, যুদ্ধ পরে হবে, শ্রুতিভূষণকে ছাড়তে পারচিনে। - মহারাজ, স্বর্ণমুদ্রা দেবার কথা বলছিলেন কিন্তু সে দান যে ক্ষয় হ’য়ে যাবে । বৈরাগ্যবারিধি লিখচেন— স্বর্ণদান করে যেই করে দুঃখ দান যত স্বর্ণ ক্ষয় হয় ব্যথা পায় প্রাণ । শত দাও, লক্ষ দাও, হ’য়ে যায় শেষ, শূন্য ভাণ্ড ভরি শুধু থাকে মনঃক্লেশ । আহা শরীর রোমাঞ্চিত হ’ল । প্রভু কি তাহ’লে— না আমি সহস্ৰমুদ্র চাইনে ! দিন দিন একটু পদধূলি দিন । সহস্র মুদ্রা চান না। এত বড় কথা ! মহারাজ, এই সহস্র মুদ্রা অক্ষয় হ’য়ে যাতে মহারাজের পুণ্যফলকে অসীম করে আমি এমন কিছু চাই ! গোধনসমেত আপনার ঐ কাঞ্চনপুর জনপদটি যদি ব্ৰহ্মত্রদান করেন কেবলমাত্র ঐটুকুতেই আমি সস্তুষ্ট থাকব ; কারণ বৈরাগ্যবারিধি বলচেন— বুঝেচি শ্রুতিভূষণ, এর জন্যে আর বৈরাগ্যবারিধির প্রমাণ দরকার নেই। মন্ত্রী, কাঞ্চনপুর জনপদটি যাতে শ্রুতিভূষণের বংশে চিরন্তন—আবার কি, বারবার কেন চীৎকার করচে ? ○ ○○ 9–70