পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/১৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।




 অধর্ম্ম করিল
 অনেক সঙ্কটে ভ্রমিলেক বনে বন।।
 যত কৈল অগোচর নাহিক আমায়।
 সে কারণে দেখিবারে আইনু হেথায়।।
 দুঃখ না ভাবিও বধূ স্থির কর মন।
 অচিরে হইবে তব দুঃখ বিমোচন।।
 তব পুত্রগণ গুণ না জানহ তুমি।
 মম অগোচর নাহি সব জানি আমি।।
 ধর্ম্মবলে বাহুবলে জিনিবে সকলে।
 বিভব করিবে সাগরান্ত ভূমণ্ডলে।।
 এক্ষণে যে বলি আমি শুন সাবধানে।
 বহু দুঃখ পেলে, বহু ভ্রমিলে কাননে।।
 নিকটে নগর এই একচক্রা নাম।
 কিছুদিন রহি হেথা করহ বিশ্রাম।।
 গুপ্তবেশে এই স্থানে থাক ছয়জনে।
 তাবৎ থাকহ আমি না আসি যত দিনে।।
 ব্রাম্ভণের গৃহে রহিলেন ছয়জন।
 স্বস্থানে গেলেন ব্যাস মহাতপোধন।।
 পূণ্যকথা ভারতের অমৃত সমান।
 কাশীরাম দাস কহে শুনে পূণ্যবান্।।
     ------
 এক চক্রানগরে যুধিষ্ঠিরাদির স্থিতি ও বক বধ।
   রহেন ব্রাম্ভণ গৃহে পাণ্ডুপুত্রগণ।
 নগরে ভ্রমেন নিত্য ভিক্ষার কারণ।।
 ভিক্ষা করি আনি সবে দিবা অবসানে।
 যে কিছু পারেন দেন জননীর স্থানে।।
 জননী করিয়া পাক দেন সবাকারে।
 অর্দ্ধেক করিয়া দেন বীর বৃকোদরে।।
 হেনমতে বিপ্রগৃহে বঞ্চে বহু ক্লেশে।
 ভিক্ষা করি আনি দেন ব্রাম্ভণের বেশে।।
 একদিন গৃহেতে রহিল বৃকোদর।
 ভিক্ষাতে গেলেন আর চারি সহোদর।।
 আচম্বিতে বিপ্রগৃহে মহাশব্দ শুনি।
 বিলাপ করিয়া কান্দে ব্রাম্ভণ ব্রাম্ভণী।।
 
 কহিলেন নিকটেতে ভীমেরে ডাকিয়া।।
 এতদিন বিপ্রগৃহে আছি যে অজ্ঞাতে।
 পরম সাহায্য বিপ্র করিল বিপত্তে।।
 এখন বিপদগ্রস্ত হইল ব্রাম্ভণ।
 অবশ্য বিপদে তাঁরে ক্রহ রক্ষণ।।
 উপকারী জনে যে সাহায্য নাহি করে।
 পরলোকে পাপ হয় অযশ সংসারে।।
 ভীম বলিলেন মাতা জিজ্ঞাস ব্রাম্ভণে।
 শক্তি অনুসারে রক্ষা করিব এক্ষণে।।
 ভীমের আশ্বাস পেয়ে যান কুন্তীদেবী।
 বৎসের বন্ধনে যেন ধায় ত সুরভি।।
 ব্রাম্ভণ কাতর হৈয়া বলে ব্রাম্ভণীরে।
 এই হেতু পূর্ব্বে কত বলিনু তোমারে।।
 রাক্ষসের উপদ্রব যেই দেশে হয়।
 সে দেশে বসতি কভু উপযুক্ত নয়।।
 পিতামাতা স্নেহে তুমি লঙ্ঘিলা বচন।
 তাহার উচিত দুঃখ পাইবে এখন।।
 কি করিব উপায় না দেখি যে ইহার।
 কোন বুদ্ধি করিব না দেখি প্রতিকার।।
 তুমি ধর্ম্মপত্নী হও আমার গৃহিনী।
 সর্ব্ব ধর্ম্মবিশারদা সুখপ্রদায়িনী।।
 বিশেষ বালক পুত্র আছে যে তোমার।
 তোমা বিনা মুহুর্ত্তেক না জীবে কুমার।।
 অরন্যের প্রায় দুঃখ হবে তোমা বিনে।
 জীয়ন্তে হইবে মরা তোমার মরণে।।
 আপণা রাখিয়া তোমা দিব রাক্ষসেরে।
 অপযশ হবে আমা সংসার ভিতরে।।
 অপুর্ব্ব সুন্দরী এই কন্যা সুবদনী।
 কন্যা রাক্ষসেরে দিলে     কাহিনী।।
 কন্যা জন্ম হৈলে পিতৃলোকে করে আশ।
 দান কৈলে
 ইহা ল'য়ে 
 ধিক্ ধিক্
 আপনি যাইব আমি
 এত বলি কান্দে