পাতা:গল্প-গ্রন্থাবলী (প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়) তৃতীয় খণ্ড.djvu/৪০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


॥ ख्रिौंच चन्ािटश्च ॥ রোগীর কক্ষ হইতে সমস্ত লোক বাহির করিয়া দিয়া, দ্বার বন্ধ করিয়া, বড়কুমার ভাবিলেন, “যে রকম শক্ত অপারেশন, আর রোগী যে রকম দলবল, এ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে যদি পটল তোলে ? তার চেয়ে ক্লোরোফল্ম করি।” (পাঠক ইহা পরিহাস ভাবিবেন না। মল ভোজপ্রবন্ধে আছে, “মোহচণেন মোহয়িত্বা শিরঃকপালমাদায়..." —সতরাং দেখা যাইতেছে, ৯oo বৎসর পাবেও কবিরাজ মহাশয়গণ ক্লোরোফম-তত্ত্ব অবগত ছিলেন । ) ক্লোরোফল্ম করিয়া অশিবনীকুমার রাজাকে বসাইয়া তাঁহার মাথার চামড়া কাটিয়া খালি খসাইয়া ফেলিলেন। মাছটাকে বাহির করিয়া জলপািণ একটা হাঁড়ির মধ্যে ফেলিলেন। তারপর খালি বসাইয়া, চামড়া সেলাই করিয়া, ক্ষতস্থান উত্তমরপে ব্যান্ডেজ করিয়া দিয়া রাজাকে আবার শোয়াইয়া দিলেন। . আরামসচক একটা আঃ শব্দ করিয়া, পাশ ফিরিয়া রাজা ঘ,মাইতে লাগিলেন । বার খোলা হইল। সকলে প্রবেশ করিয়া দেখিল, রাজা গভীর নিদায় মগন। রোগ হইবার পর, এই প্রথম তাহারা রাজাকে ঘুমাইতে দেখিল। চাপি চাপি জিজ্ঞাসা করিল, “কি হয়েছিল মশাই ?” অশ্বিনীকুমার হাঁড়ি দেখাইয়া দিলেন। বললেন, “তোমাদের রাজার মস্তিকের ভিতর ঐ মাছ ছিল।” কি করিয়া মাছ ঢকিয়াছিল, তাহাও তিনি সকলকে বলিয়া দিলেন। সকলে শনিয়া ত অবাক। পরা ৪৮ ঘণ্টা রাজা ঘামাইলেন। ঘুম ভাঙ্গিলে দেখিলেন, মাথায় আর কোনও যন্ত্রণা নাই—কেবল দেহ অত্যন্ত দলবল। তাঁহাকে বলকারক ঔষধ ও পথ্য দেওয়া হইতে লাগিল। প্রজারা, আমলারা, চিকিৎসক মহাশয়কে তখনই যাইতে দিল না। বলিল, “রাজা আগে শরীরে বল পান, উঠে হেটে বেড়ান, তখন আপনি যাবেন। কি জানি, আবার যদি কোনও উপসগ দেখা দেয় ।” সতরাং অশ্বিনীকুমার কয়েকদিন রহিয়া গেলেন। রাজা দিন দিন সবল হইয়া উঠিতে লাগিলেন। খুব উচ্চ বেতনে ইহাকে তিনি নিজ টেট-ফিজিসিয়ন নিযুক্ত করিতে চাহিলেন -–কিন্তু কবিরাজ মহাশয় রাজি হইলেন না ! অবশেষে তাঁহার বিদায়ের দিন উপপিথত হইল। ভোজরাজ রাজসভা মধ্যে কবিরাজ মহাশয়কে লহসন্মানে ভূষিত করিলেন। ঘড়া-ঘড়া মোহর, মণি-মুক্তা, হাতী ঘোড়া প্রভৃতি তাঁহাকে পারিতোষিক প্রদত্ত হইল। অবশেষে রাজা বলিলেন, “কবিরাজ মশায়, আপনি ত চললেন—আপনাকে রাখতে আমরা পারলাম না। তা, সে ক্ষোভ করা আর ব্যথা । আপনার তুল্য মহাপণ্ডিত সুচিকিৎসক ত আমাদের নজরে কখনও আসেনি। তা, একটা কথা আপনার কাছে জেনে নিতে চাই !" “কি বলনে ?” “আহার বিহার প্রভৃতিতে, কি রকম নিয়ম পালন করলে, আমাদের দেহ বেশ ভাল থাকে,-সেইটে আমাদের বলে দিয়ে যান। অর্থাৎ স্বাস্থ্যরক্ষার অনকেল পথ্য কি কি ?” অশ্বিনীকুমার কহিলেন— আশাঁতেনামভসি স্নানং, পয়ঃ পানং, বরাঃ সিত্ৰয়ঃ। এতদ বো মানযোঃ পথ্যং— শেলাক শেষ হইল না—ভোজরাজ খপ করিয়া তাঁহার হাত ধরিয়া ফেলিয়া বলিলেন —“মানবাঃ! আপনি আমাদের হে মানুষগণ বলে সবোধন করছেন, আপনি কি তাহলে Ф/&ob