পাতা:গল্প-গ্রন্থাবলী (প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়) তৃতীয় খণ্ড.djvu/৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


80 গলপ-গ্রন্থাবলী শয়নকক্ষে গিয়া উপস্থিত হইল। পালঙ্কোপরি স্বামী নিদিত—তাহার মুখে মাঝে মাঝে হাসির রেখা ফুটিয়া উঠিতেছে—বোধ হয় সে কোনও স্বপ্ন দেখিতেছে। সশীলা স্থির করিল, নিশ্চয়ই সেই ষোলবছর পরীকেই বন দেখিতেছে। ইচ্ছা হইল, স্বামীর সেই হাসিমুখে এক কিল মারিয়া তার মুখের দাঁত ও সখের স্বপন ভাঙ্গিয়া श्राख्नो कर्गब्रम्ना टमक्क ! শয্যার নিকটেই টেবিলের উপর, নাতন চামড়ার ব্যাগটি ছিল; সুশীলা ত্বাহা লইয়া, পাশেবর কক্ষে গিয়া, খলিয়া ফেলিল; অন্যান্য জিনিষের সহিত তাহার মধ্য হইতে বাহির হইল, কয়েকখানি ছাপা রঙীন কাগজ ও একখানি ফটোগ্রাফ। ফটোগ্রাফখানি একটি সন্দেরী যবেভীর প্রতিমাত্তি, বয়স ১৫১৬ বৎসর হইবে। সন্দের একখানি বারাণসী শাড়ী পরা, সব্বাঙ্গে ভাল ভাল অলঙ্কার। সুশীলা নিশ্চয় করিল, ইহাই বিবাহ সজায় সাঁজতা তাহার নব পত্নীর ছবি। সে প্রায় এক মিনিট ধরিয়া, ছবিখানির প্রতি একদটে চাহিয়া, তাহার রাপের খুৎ অন্বেষণ করিতে লাগিল। তাহার মুখের হাসি ও দাঁড়াইবার ভঙ্গি দেখিয়া রাগে সশীলার গা জবলিয়া উঠিল—গহস্থ ঘরের মেয়ের অত ঢং কেন ? সে শনিয়াছিল, আজকাল কলিকাতা সহরের মেয়েরা যখন থিয়েটার বায়কোপ বা নিমন্ত্রণ আমন্ত্রণে যাইবার জন্য সাজগোজ করিয়া বাহির হয়, তখন তাহারা কুলবধ অথবা বাইজী তাহা চেনা দকের। সুশীলা অসফট স্বরে বলিল—মখে আগন ! মুখে আগন ! লাল সবুজ হলদে কাগজগুলি খালিয়া দেখিল, সেগুলি বিবাহের প্রীতি উপহার" স্নেহাশীষ প্রভৃতি। উপরে ছাপা আছে “শ্রীমান ইন্দভূষণ চট্টোপাধ্যায়ের সহিত শ্ৰীমতী বিভাবতী দেবীর শুভ পরিণয়”—কিন্তু ইন্দভূষণ লাল কালী দিয়া কাটিয়া তাহার উপর হাতের লেখায় “পলিনবিহারী”। জিনিষগুলি সমস্ত ব্যাগের মধ্যে পনঃপথাপন করিয়া, সশীলা চোরের মত সন্তপণে গিয়া উহা পাবস্থানে রাখিয়া আসিল। তার পর ঘরের বার বন্ধ করিয়া, খালি মেঝের উপর উবড় হইয়া পড়িয়া, ফ:পাইযা ফাপাইয়া কাঁদতে লাগিল। সশীলা निछ ৷ পঞ্চম পরিচ্ছেদ ॥ রাত্রে আহারের পর, পলিন শয্যাপ্রান্তে বসিয়া গড়গড়িতে তামাক সেবন করিতেছিল, সুশীলা আসিয়া সেই শয্যার অপর প্রান্তে বসিয়া বলিল, “তুমি এমন জোচ্চোর ছলে কবে থেকে ?” পলিন বলিল, “কেন, কি জনচরি করলাম?” “কলকাতায় গিয়ে তুমি বিয়ে করে আসান ?” পলিন বলিল, “বিয়ে ? বিয়ে কি ? কখন আবার বিয়ে করলাম ? বপন দেখছ নাকি ?” সশীলা বলিল, “তাই বোধ হয়। তা, বিভাবতীকে বেশ পছন্দ হয়েছে ত ?” পলিন দুই চক্ষ কপালে তুলিয়া বলিল, “বিভাবতী কে ?” “ন্যাকামি রাখ না ! তুমি ভেবেছ ডবে ডবে জল খাবে শিবের বাবাও টের পাবে না –কিন্তু ধরে ঢাক যে আপনি বেজে ওঠে ! আমি সব জানি—সব শনেছি” বলিয়া সশীলা, গ্রেনির মা ও ঘোষগহিণীর নিকট যাহা শনিয়াছিল সমস্তই বলিল। শনিয়া পলিন মাথাটি নীচ করিয়া অপরাধীর মত বসিয়া রহিল। অবশেষে একটি দীঘনিশ্বাস ফেলিয়া বলিল, “এই জন্যেই বলে, যার জন্যে চরি করে সেই বলে চোর। ८ष्ठाधाझई अनदब्राह्थ ७ काछ कब्रा-श्रान्न छूभिई आभाग्न मदषटछा ?” সশীলা ঝঙ্কার দিয়া উঠিল, “আমার অনুরোধেই যদি করা, ত আমার কাছে এত লকোচলি কি জন্যে ?” 霞