পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


যায় না, কিন্তু তাহাকে না দেখিয়া থাকিবার জো নাই— সে সকলের মধ্যে চোখে পড়িবেই।

 আর, তাহার বন্ধু বিনয় সাধারণ বাঙালি শিক্ষিত ভদ্রলােকের মতাে নম্র, অথচ উজ্জ্বল; স্বভাবের সৌকুমার্য ও বুদ্ধির প্রখরতা মিলিয়া তাহার মুখশ্রীতে একটি বিশিষ্টতা দিয়াছে। কালেজে সে বরাবরই উচ্চ নম্বর ও বৃত্তি পাইয়া আসিয়াছে । গােরা কোনােমতেই তাহার সঙ্গে সমান চলিতে পারিত না। পাঠ্যবিষয়ে গােরার তেমন আসক্তিই ছিল না; বিনয়ের মতাে সে দ্রুত বুঝিতে এবং মনে রাখিতে পারিত না। বিনয়ই তাহার বাহন হইয়া কলেজের পরীক্ষা-কয়টার ভিতর দিয়া নিজের পশ্চাতে তাহাকে টানিয়া পার করিয়া আনিয়াছে।—

 গােরা বলিতেছিল, “শােনো বলি। অবিনাশ যে ব্রাহ্মদের নিন্দে করছিল তাতে এই বােঝা যায় যে, লােকটা বেশ সুস্থ স্বাভাবিক অবস্থায় আছে। এতে তুমি হঠাৎ অমন ক্ষাপা হয়ে উঠলে কেন?”

 বিনয়। কী আশ্চর্য! এ সম্বন্ধে যে কোন প্রশ্ন চলতে পারে তাও আমি মনে করতে পারতুম না।

 গােরা। তা যদি হয় তবে তােমার মনে দোষ ঘটেছে। এক দল লােক সমাজের বাঁধন ছিঁড়ে সব বিষয়ে উলটোরকম করে চলবে আর সমাজের লােক অবিচলিতভাবে তাদের সুবিচার করবে, এ স্বভাবের নিয়ম নয়। সমাজের লােক তাদের ভুল বুঝবেই, তারা সােজা ভাবে যেটা করবে এদের চোখে সেটা বাঁকা ভাবে পড়বেই, তাদের ভালাে এদের কাছে মন্দ হয়ে দাঁড়াবেই, এইটেই হওয়া উচিত। ইচ্ছামত সমাজ ভেঙে বেরিয়ে যাওয়ার যতগুলাে শাস্তি আছে এও তার মধ্যে একটা।

 বিনয়। যেটা স্বাভাবিক সেইটেই যে ভালাে, তা আমি বলতে পারি নে।

 গােরা একটু উষ্ণ হইয়া উঠিয়া কহিল, “আমার ভালােয় কাজ নেই। পৃথিবীতে ভালাে দু-চারজন যদি থাকে তাে থাক্, কিন্তু বাকি সবাই যেন

১৬