পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


লেখাপড়া যেটুকু শিখেছিলুম তাও যে এক রাত্রে সমস্ত ভুলে বসে আছি এমন তাে বােধ হয় না।”

 আনন্দময়ী সুচরিতাকে কহিলেন, “তােমার মাসি কি রাজি হবেন?”

 সুচরিতা কহিল, “আমি তাঁকে একটা চিঠি লিখছি।”

 আনন্দময়ী কহিলেন, “তুমি লিখাে না। আমিই লিখব।”

 আনন্দময়ী জানিতেন, সুচরিতা যদি থাকিতে ইচ্ছা করে তবে হরিমােহিনীর তাহাতে অভিমান হইবে। কিন্তু তিনি অনুরােধ জানাইলে রাগ যদি করেন তবে তাঁহার উপরেই করিবেন— তাহাতে ক্ষতি নাই।

 আনন্দময়ী পত্রে জানাইলেন, ললিতার নূতন ঘরকন্না ঠিকঠাক করিয়া দিবার জন্য কিছুকাল তাঁহাকে বিনয়ের বাড়িতে থাকিতে হইবে। সুচরিতাও যদি এ-কয়দিন তাঁহার সঙ্গে থাকিতে অনুমতি পায় তবে তাঁহার বিশেষ সহায়তা হয়।

 আনন্দময়ীর পত্রে হরিমােহিনী কেবল যে ক্রুদ্ধ হইলেন তাহা নহে, তাঁহার মনে বিশেষ একটা সন্দেহ উপস্থিত হইল। তিনি ভাবিলেন, ছেলেকে তিনি বাড়ি আসিতে বাধা দিয়াছেন, এবার সুচরিতাকে ফাঁদে ফেলিবার জন্য মা কৌশলজাল বিস্তার করিতেছে! তিনি স্পষ্টই দেখিতে পাইলেন, ইহাতে মাতাপুত্রের পরামর্শ আছে। আনন্দময়ীর ভাবগতিক দেখিয়া গােড়াতেই যে তাঁহার ভালাে লাগে নাই সে কথাও তিনি স্মরণ করিলেন।

 আর কিছুমাত্র বিলম্ব না করিয়া যত শীঘ্র সম্ভব সুচরিতাকে একবার বিখ্যাত রায়গােষ্ঠীর অন্তর্গত করিয়া নিরাপদ করিয়া তুলিতে পারিলে তিনি বাঁচেন। কৈলাসকেই বা এমন করিয়া কতদিন বসাইয়া রাখা যায়। সে বেচারা যে অহােরাত্র তামাক টানিয়া টানিয়া বাড়ির দেয়ালগুলা কালী করিবার জো করিল।

 যেদিন চিঠি পাইলেন হরিমােহিনী তাহার পরদিন সকালেই পাল্‌কিতে করিয়া বেহারাকে সঙ্গে লইয়া স্বয়ং বিনয়ের বাসায় আসিয়া উপস্থিত হইলেন। তখন নীচের ঘরে সুচরিতা ললিতা ও আনন্দময়ী রান্নাবান্নার আয়ােজনে

৫৫৪