পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৯৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


ধরিবে, কী করিবে, আবার কোথা হইতে শুরু করিবে, আবার কোন্ দিকে লক্ষ স্থির করিবে, আবার দিনে দিনে ক্রমে ক্রমে কর্মের উপকরণসকল কোথা হইতে কেমন করিয়া সংগ্রহ করিয়া তুলিবে! এই দিক্‌চিহ্নহীন অদ্ভুত শূন্যের মধ্যে গােরা নির্বাক হইয়া বসিয়া রহিল। তাহার মুখ দেখিয়া কেহ তাহাকে আর দ্বিতীয় কথাটি বলিতে সাহস করিল না।

 এমন সময় পরিবারের বাঙালি চিকিৎসকের সঙ্গে সাহেব-ডাক্তার আসিয়া উপস্থিত হইল। ডাক্তার যেমন রােগীর দিকে তাকাইল তেমনি গােরার দিকেও না তাকাইয়া থাকিতে পারিল না; ভাবিল, ‘এ মানুষটা ক,!’ তখনাে গােরার কপালে গঙ্গামৃত্তিকার তিলক ছিল এবং স্নানের পরে সে যে গরদ পরিয়াছিল তাহা পরিয়াই আসিয়াছে। গায়ে জামা নাই, উত্তরীয়ের অবকাশ দিয়া তাহার প্রকাণ্ড দেহ দেখা যাইতেছে।

 পূর্বে হইলে ইংরাজ ডাক্তার দেখিবা মাত্র গােরার মনে আপনিই একটা বিদ্বেষ উৎপন্ন হইত। আজ যখন ডাক্তার রােগীকে পরীক্ষা করিতেছিল তখন গােরা তাহার প্রতি বিশেষ একটা ঔৎসুক্যের সহিত দৃষ্টিপাত করিল। নিজের মনকে বার বার করিয়া প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করিতে লাগিল, ‘এই লােকটাই কি এখানে আমার সকলের চেয়ে আত্মীয়?’

 ডাক্তার পরীক্ষা করিয়া ও প্রশ্ন করিয়া কহিল, “কই, বিশেষ তাে কোনাে মন্দ লক্ষণ দেখি না। নাড়ীও শঙ্কাজনক নহে, এবং শরীরযন্ত্রেরও কোনাে বিকৃতি ঘটে নাই। যে উপসর্গ ঘটিয়াছে সাবধান হইলেই তাহার পুনরাবৃত্তি হইবে না।”

 ডাক্তার বিদায় লইয়া গেলে কিছু না বলিয়া গােরা চৌকি হইতে উঠিবার উপক্রম করিল।

 আনন্দময়ী ডাক্তারের আগমনে পাশের ঘরে চলিয়া গিয়াছিলেন। তিনি দ্রুত আসিয়া গােরার হাত চাপিয়া ধরিয়া কহিলেন, “বাবা, গােরা, আমার উপর তুই রাগ করিস নে, তা হলে আমি আর বাঁচব না।”

 গােরা কহিল, “তুমি এতদিন আমাকে বল নি কেন! বললে তােমার

৪৮৫