পাতা:চতুরঙ্গ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


श्रध्नौष्ण 92 দামিনী সম্বন্ধে গোড়াকার দিকের কথাটা বলিয়া লই । পাটের ব্যবসায়ে একদিন যখন তার বাপ অন্নদাপ্রসাদের তহবিল মুনফার হঠাৎ-প্লাবনে উপচিয়া পড়িল সেই সময়ে শিবতোষের সঙ্গে দামিনীর বিবাহ। এতদিন কেবলমাত্র শিবতোষের কুল ভালো ছিল, এখন তার কপাল ভালো হইল। অন্নদা জামাইকে কলিকাতায় একটি বাড়ি এবং যাহাতে খাওয়াপরার কষ্ট না হয় এমন সংস্থান করিয়া দিলেন । ইহার উপরে গহনাপত্র কম দেন নাই । শিবতোষকে তিনি আপন আপিসে কাজ শিখাইবার অনেক চেষ্টা করিয়াছিলেন । কিন্তু, শিবতোষের স্বভাবতই সংসারে মন ছিল না। একজন গণৎকার তাহাকে একদিন বলিয়া দিয়াছিল, কোন এক বিশেষ যোগে বৃহস্পতির কোন-এক বিশেষ দৃষ্টিতে সে জীবন্মুক্ত হইয়া উঠিবে। সেই দিন হইতে জীবন্মুক্তির প্রত্যাশায় সে কাঞ্চন এবং অন্যান্ত রমণীয় পদার্থের লোভ পরিত্যাগ করিতে বসিল । ইতিমধ্যে লীলানন্দস্বামীর কাছে সে মন্ত্র লইল । এ দিকে ব্যবসায়ের উলটা হাওয়ার ঝাপটা খাইয়া অন্নদার ভরা-পালের ভাগ্যতরী একেবারে কাত হইয়া পড়িল । এখন বাড়িঘর সমস্ত বিক্রি হইয়া আহার চলা দায় । একদিন শিবতোষ সন্ধ্যাবেলায় বাড়ির ভিতরে আসিয়া স্ত্রীকে বলিল, “স্বামীজি আসিয়াছেন— তিনি তোমাকে ডাকিতেছেন, কিছু উপদেশ দিবেন।” * দামিনী বলিল, “ন, এখন আমি যাইতে পারিব না।