পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


●ミ চয়নিক অস্তগুঢ় বাষ্পাকুল বিচ্ছেদ-ক্ৰন্দন এক দিনে । ছিন্ন করি” কালের বন্ধন সেই দিন ঝরে পড়েছিল অবিরল চিরদিবসের যেন রুদ্ধ অশ্রজল আৰ্দ্ৰ করি’ তোমার উদার শ্লোক রাশি । সে-দিন কি জগতের যতেক প্রবণসী জোড়হস্তে মেঘপানে শূন্তে তুলি” মাথা গেয়েছিল সমস্বরে বিরহের গাথা ফিরি’ প্রিয়-গৃহপালে । বন্ধন-বিহীন নবমেঘ-পক্ষ-’পরে করিয়া অভ্যাসীন পাঠাতে চাহিয়াছিল প্রেমের বারত। অশ্রুবাম্পভরা,— দূর বাতায়নে যথা বির হিণী ছিল শুয়ে ভূতল-শয়নে মুক্তকেশে, স্নানবেশে, সজল নয়নে ? তাদের সবার গান তোমার সংগীতে পাঠায়ে কি দিলে, কবি, দিবসে নিশীথে দেশে দেশাস্তরে, খুজি’ বিরহিণী বিপ্রয়া । শ্রাবণে জাহ্নবী যথা যায় প্রবাহিয়। টানি’ লয়ে দিশ দিশস্তের বারিধারণ মহাসমুদ্রের মাঝে হোতে দি শাহার । পাষাণ-শৃঙ্খলে যথা বন্দী হিমাচল আষাঢ়ে অনস্ত শূন্যে হেরি মেঘদল স্বাধীন গগন-চারী, কাতরে নিশ্বাসি’ সহস্ৰ কন্দর হতে বাম্প রাশি রাশি পাঠায় গগন পানে ; ধায় তা’র ছুটি’ উধাও কামনা সম ; শিখরেতে উঠি”