পাতা:চয়নিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চয়নিক কে তোমারে বেঁধেছিল দুটি বাহুডোরে, আপনার হৃদয়ের অগাধ সাগরে, রেখেছিল মগ্ন করি’ ! এত প্রেমকথা, রাধিকার চিত্তদীর্ণ তীব্র ব্যাকুলতা চুরি করি লইয়াছ কার মুখ, কার আঁখি হতে । আজ তার নাহি অধিকার সে সংগীতে ? তারি নারী-হৃদয়-সঞ্চিত তার ভাষা হতে তারে করিবে বঞ্চিত চিরদিন ? আমাদেরি কুটীর-কাননে ফুটে পুষ্প, কেহ দেয় দেবতা-চরণে, কেহ রাখে প্রিয়জন তরে—তাহে তার নাহি অসন্তোষ । এই প্রেম-গীতি-স্তার গাখা হয় নরনারী-মিলন-মেলায়, কেহ দেয় তারে, কেহ বঁধুর গলায় । দেবতারে যাহা দিতে পারি, দিষ্ট তাই প্রিয়জনে—প্রিয়জনে যাহা দিতে পাই তাই দিই দেবতারে ; আর পাব কোথ! ! দেবতারে প্রিয় করি, প্রিয়েরে দেবত । বৈষ্ণব কবির গাথ; প্রেম-উপহার চলিয়াছে নিশিদিন কত ভারে ভার বৈকুণ্ঠের পথে । মধ্য-পথে নরনারী অক্ষয় সে স্ন ধারাশি করি” কাড়া কাডি লইতেছে আপনার প্রিয় গৃহতরে যথাসাধ্য যে যাহার ; যুগে যুগান্তরে চিরদিন পৃথিবীতে যুবকযুবতী নর নারী এমনি চঞ্চল মতিগতি ।