পাতা:চিহ্ন - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

নারায়ণ গম্ভীর হয়ে বলে, উনি কিন্তু টের পেয়েছেন लष्उ । শুনে রাজত ভড়কে যাবে ভেবেছিল নারায়ণ, কিন্তু রাজত জিভে ঠোঁটে তার সেই অদভূত আওয়াজটাই শুধু করে একবার। ---’টের পেয়েছে ? আপনি কি করে জানলেন ?? 'দু তিনবার তোমায় ডাকলেন নাম ধরে। শুনতে পাওনি ?” কোন বিষয়ে এক মুহুর্তের জন্য ইতস্ততঃ করা যেন স্বভাব নয় রাজাতের। ঘােড় উচু করে দিদির দিকে মাখ করে সে চেচিয়ে छांत, निद्रि ! उठाकछि0लग नांकि उाभांश ? শান্তি বলে, ‘এদিকে আয়। কথা শুনে যা “কি করে যাব ?? রাজত প্রতিবাদ জানায়, ‘জায়গা বেদখল হয়ে যাবে আমার।” আরও গলা চড়িয়ে বলে, “যা বলবার বাড়ীতে গিয়ে বোলো, কেমন ?” অনেক দিন পরে নারায়ণ কেমন একটি স্বস্তি বোধ করে, নিদারুণ হতাশার জ্বালা যেন তার নেই। আর । আশাচৰ্য্য রকম শক্ত আর সমর্থ মনে হয় নিজেকে। তারই দুঃসহ আক্রোশের যে চাপ তাকেই ভেঙ্গে চুরমার করে দেবে, সেটা যেন কাৰ্য্যকারী ১, শক্তিতে রূপান্তরিত হচেছ সে অনুভব করে। পুঞ্জ পুঞ্জ সঞ্চিত মে মৃণা, জীবন্ত মৰ্ম্মান্তিক ঘূণা, অস্থির চঞ্চল করে রাখে তাকে SDBD DBDS DB DB DBBD DDDBD BB DBDD DB BDDBS নিজে বয়লারের মত শক্ত হয়ে সেই প্ৰচণ্ড ঘূণার বাষ্পকে সে যেন फ्रिछ : १ ՀԳ