পাতা:দুই বোন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।
১১২
দুই বোন

এবং লোকসানের দায় পড়েছে ঘাড়ে। মথুরদাদা স্বতন্ত্ৰ হবেন।” উৰ্মির বুক ধক্ করে উঠল, মুখ হয়ে গেল পাশের মতো। এক মুহূর্তে বিত্যুতের আলোয় আপন মনের প্ৰচ্ছন্ন রহস্য প্ৰকাশ পেলে। স্পষ্ট বুঝলে, কখন অজ্ঞাতসারে তার মনের ভিতরটা উঠেছিল মাতাল হয়ে, ভালোমন্দ কিছুই বিচার করতে পারেনি। শশাঙ্কর কাজটাই যেন ছিল তার প্রতিযোগী, তারি সঙ্গে ওর অাড়াআড়ি। কাজের থেকে ওকে ছাড়িয়ে নিয়ে সর্বদা সম্পূৰ্ণ কাছে পাবার জন্যে উমি কেবল ভিতরে ভিতরে ছটফট করত। কতদিন এমন ঘটেছে, শশাঙ্ক যখন স্নানে, এমন সময় কাজের কথা নিয়ে লোক এসেছে; উৰ্মি কিছু না ভেবে ব’লে পাঠিয়েছে “বলগে এখন দেখা হবে না।” ভয়, পাছে স্নান ক’রে এসেই শশাঙ্ক অার অবকাশ না পায়, পাছে এমন ক’রে কাজে জড়িয়ে পড়ে যে, উৰ্মির দিনটা হয় ব্যৰ্থ। তার দুরন্ত নেশার সাংঘাতিক ছবিটা সম্পূৰ্ণ চোখে জেগে উঠল। তৎক্ষণাৎ দিদির পায়ের উপর অাছাড় খেয়ে পড়ল। বারবার ক’রে রুদ্ধপ্ৰায় কণ্ঠে বলতে লাগল, “তাড়িয়ে দাও তোমাদের