পাতা:পণ্ডিত শিবনাথ শাস্ত্রীর জীবনচরিত.pdf/১৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


५6कॉमें अक्षJभू । ᎩᏛ Ꮼ হয়ে যাও, নয়। ত আরও বিপদ হবে।” শিবনাথ সে বাড়ী হইতে uuD DBBBDSDS SLDBBBDBSDBD DBK DDD S S DBDB DS নূতন বাড়ীতে আসিয়া আবার প্রিয়নাথ যখন পড়িয়া গেলখোদাই দিনে দুপুরে লাট লইয়া চুটিয়া যাইত, “আবার এখানেও এসেছিস, দূর হী!” লোকে দেখিত শূন্য দৃষ্টিতে সে কি দেখিয়া আতঙ্কে চীৎকার করিতেছে । খোদাই সকল কাৰ্য্যের বাহির হইয়া গেল। ক্রমে শয্যা লইল, দেশে গিয়াই সে মারা গেল। এই প্ৰভুভক্ত ভৃত্যকে শিবনাথ তার “মেজ বেী” পুস্তকে অমর করিয়া গিয়াছেন। সে অমর হইবার যোগ্য ভূত্য বটে। শিবনাথের সদয় ব্যবহারে আজীবন ভূত্যগণ তঁার একান্ত ভক্ত হইয়া উঠিত। পরিবার পরিজনকে মুঙ্গেরে রাখিয়া আবার হেয়ার স্কুলের কাৰ্য্যভার গ্ৰহণ করিলেন । ১৮৭৭ সালে কয়েকজন ব্ৰাহ্ম মিলিত হইয়া অতি গোপন ভাবে একটা ঘন নিবিষ্ট দল গঠন করেন। বিপিনচন্দ্ৰ পাল, সুন্দরীমোহন বিপিনচন্দ্ৰ দাস, আনন্দচন্দ্ৰ মিত্র, ময়মনসিংহের শরচ্চন্দ্ৰ পাল প্রমুখ দাস, প্রভৃতি এই দলে ছিলেন। ইহাদের 而死 অনুরোধে শিবনাথও এই দলভুক্ত হন। একদিন বরাহনগরে এক নিৰ্জন উদ্যানে বিশেষ উপাসনার পর নিম্নলিখিত প্ৰতিজ্ঞা পত্রে সাক্ষর করিয়া ভগবানের নাম লহীয়া অগ্নি জালিয়া, সেই প্ৰজ্বলিত হুতাশনে, নিজ নিজ নাম লিখিয়া নিক্ষেপ করেন। শিবনাথ আত্মচরিতে লিখিয়াছেন, "ইহারা যখন ভগবানের নাম কীৰ্ত্তন করিতে করিতে আগুনের চারিদিকে ঘুরিয়া আমিতে লাগিলেন, তখন আশ্চৰ্য্য বল ও আশ্চৰ্য্য প্ৰতিজ্ঞ আমার মনে জাগিতে লাগিল” ।