পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৬৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পলাতক অন্তরে মোর লুকিয়ে ছিল কী যে সে ক্ৰন্দন জানব এমন পাই নি অবকাশ । প্রাণের উপবাস সংগোপনে বহন ক’রে কর্মরথে সমারোহে চলতেছিলেম নিস্ফলতার মরুপথে । তিনটে চারটে সভা ছিল জুড়ে আমার কাধ ; দৈনিকে আর সাপ্তাহিকে ছাড়তে হ’ত নকল সিংহনাদ ; বীডন কুঞ্জে নীটিং হলে আমি হতেম বক্তা ; রিপোর্ট লিখতে হ’ত তক্তা তক্তা ; যুদ্ধ হত সেনেট-সিণ্ডিকেটে ; তার উপরে আপিস আছে— এমনি ক’রে কেবল খেটে খেটে দিন রাত্রি যেত কোথায় দিয়ে । বন্ধুরা সব বলত, “করছ কী এ | মারা যাবে শেষে ’ আমি বলতেম হেসে,— ‘কী করি ভাই, খাটতে কি হয় সাধে ! একটু যদি ঢিল দিয়েছি অমনি গলদ বাধে, কাজ বেড়ে যায় আরো— কী করি তার উপায় বলতে পারে ? বিশ্বকৰ্মার সদর আপিস ছিল যেন আমার পরেই ন্যস্ত, অহোরাত্রি এমনি আমার ভাবটা ব্যতিব্যস্ত । ՎեԵr