পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৭৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছিন্ন পত্র আকাশ যেন কালো মেঘে অন্ধ হল, হঠাৎ এল কোন দশমী সঙ্গে নিয়ে ঝঞ্জার গর্জন, মোর প্রতিমার হল বিসর্জন । দেখাশোনা ঘুচল যখন, এলেম যখন দূরে, তখন প্রথম শুনতে পেলেম কোন প্রভাতী সুবে প্রাণের বীণা বেজেছিল কাহার হাতে । নিবিড় বেদনাতে মুখখানি তার উঠল ফুটে তাধার-পটে সন্ধাতারার মতো ; একই সঙ্গে জানিয়ে দিলে, সে যে আমার কত, সে যে আমার কতখানিষ্ট নয় । প্রেমের শিখা জ্বলল তখন নিবল যখন চোখের পরিচয় । কত বছর গেল চলে, আবার গ্রামে গিয়েছিলেম পরীক্ষণ-পাস হলে । গিয়ে দেখি, ওদের বাড়ি কিনেছে কোন পাটের কুঠিয়াল, হল অনেক কাল । পিয়ে করে নতুর স্বামী কোন দেশে যে নিয়ে গেছে, ঠিকানা তার খুজে না পাই আনি । সেই মন্ত আজ এতকালের অজ্ঞাতবাস টুটে, কোন কথাটি পাঠালো তার পত্রপুটে ?