পাতা:পাখীর কথা - সত্যচরণ লাহা.pdf/২৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

তৃতীয় ভাগ

২৫৩

আশ্রয়দাতা বায়সাদির নির্বুদ্ধি ও যন্ত্রচালিতের ন্যায় ব্যবহার, এই উভয়ে মিলিয়া সমগ্র জাতিটার প্রাণরক্ষা করিয়া আসিতেছে। কি ছলে পুংস্কোকিল নীড়ের সমীপবর্ত্তী হইবামাত্র ক্রুদ্ধ বায়স কর্ত্তৃক তাড়িত হইয়া পলায়নের ভান করিয়া বায়সকে নীড় হইতে বহু দূরে লইয়া যায়; সেই অবসরে সুচতুরা কোকিলা কি কৌশলে স্বীয় ডিম্বকে কাকডিম্বগুলার মাঝখানে সযত্নে প্রসব করিয়া অথবা প্রসূত ডিম্বকে রক্ষা করিয়া চলিয়া আসে; কোকিলের অনুসরণকারী পূর্ব্বোক্ত বায়স প্রত্যাবর্ত্তন কবিয়া অসন্দিগ্ধচিত্তে সব ডিমগুলিকে সমানভাবে তা’ দিতে থাকে, অণ্ড হইতে কোকিলশাবক নির্গত হইলে তাহার প্রতি কাকের কোনও আক্রোশের লক্ষণ দেখা যায় কি না;—এই সমস্ত জটিল রহস্যময় ব্যাপার আমরা অন্যত্র আলোচনা করিয়াছি। এখন পরভৃত ও পরপুষ্ট শব্দ দুইটির তাৎপর্য্য ও সার্থকতা সহজেই উপলব্ধি করা যাইবে। বায়সের তুলনায় কোকিলের বিচারবুদ্ধি অথবা instinct-এই দুইয়ের মধ্যে কোন্‌টা অপেক্ষাকৃত প্রবল, সেই Reason ও Instinctএর প্রসঙ্গ এস্থলে উত্থাপিত করিতে চাই না। তবে এই কোকিল যে বিহগদিগের মধ্যে “পণ্ডিত” তাহা তাহার কার্য্যপ্রণালী হইতে বুঝা যায়;—সে যেভাবে কাককে বোকা বানায়, এবং কাকের নিকট হইতে কাজ আদায় করে, শুধু সেইটুকু অনুধাবন করিলেই ইহার বুদ্ধিবৃত্তির প্রাখর্য্য অথবা ইহার “পাণ্ডিত্য” স্বীকার করিতে আমরা বাধ্য। বায়সরচিত নীড়ের মধ্যে নিজের ডিম্বটিকে রাখিয়া আসিবার জন্য কোকিলের চতুরি ও লুকোচুরি বিস্ময়জনক ’ত বটেই; কিন্তু এইখানেই তাহার কাজ শেষ হইল না। যদি সে মনে করে যে নীড়স্থ কাকডিম্বগুলি থাকিলে তাহার ডিম্ব ফুটিয়া শাবকোৎপাদনের বাধা ঘটিবার সম্ভাবনা আছে, তাহা হইলে সে নির্দ্দয়ভাবে আশ্রয়দাতা কাকের ডিম্বগুলি নীড়চ্যুত করিয়া নষ্ট করিতে কিছুমাত্র দ্বিধা বোধ করে না। কৌতুকের বিষয় এই যে,