পাতা:প্রবাসী (ঊনত্রিংশ ভাগ, দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৫৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


४ं ज१५f ] তুলিয়া তিনি ভবিষ্যতের ক্রমসঞ্চীয়মান ভাবসম্পদের দিকে অঙ্গুলিসঙ্কেত করিয়াছেন। রবীন্দ্রনাথ বাংলার সাহিত্যভাণ্ডারে বাহ সংগ্ৰহ করিয়াছেন, তাহার বীজ বপন করিয়াছেন তিনি নিজে, কিন্তু তিনি যে বীজ বপন সন্ধ্যাতারা &శీషా SAASAASAASAAT TASASAS SSAS SSAS SSAS SSAS SSAS SSAS - कब्रिध्ना cगरजन, ठांझांब्र श्रृंब्रि१ङ फ्ण ८कांन् उfगjयनि আহরণ করিবে তাহ! এখন আমাদের কল্পনারও অতীজ। তাহার আগমনপ্রতীক্ষায় সমগ্ৰ দেশ অনিমেষনয়নে ভবিষ্যৎ কালের দিকে চাহিয়া থাকিবে । সন্ধ্যাতারা শ্ৰীগোপাল লাল দে, বি-এ ওগো সন্ধ্যার প্রথম পথিক, গোধূলি বেলার প্রিয়, আকাশ-গেহের স্নেহের প্রদীপ, হে অনিৰ্ব্বচনীয়, নীল সায়রের প্রতীচি সোপানে, স্বৰ্গবালার উলসিত স্বানে, লক্ষ রূপের হোরি হেরিবারে এসেছ কি লোভনীয়, সন্ধ্যাপথের প্রথম পথিক, গোধূলি বেলার প্রিয়। শোণিতরক্ত ধসন কাহারো উড়িছে দিগন্তরে, নীল বাসখানি ছড়ায়ে দিয়েছে কেহ বা বিলাস ভরে, কাহারে কনক চাপা বাসখানি, সতেজ সবুজ কারে বা উড়ানি, শ্বেত আসমানী জরদা বেগুনী পীত পট কারে তরে ; উলটি পালটি উড়ে শত শাটী নীল নভ অম্বরে । ওগে কুতুহলী, কি দেখিতে এসে অঙ্গরা লীলাস্নান, অথবা মৰ্ত্ত্য-বন্ধু-বাম-করে সন্ধ্যাপ্রদীপ দান, তুলসীতলায় রাখি দ্বীপখানি, প্রণমে যখন গলে বাস টানি, দেবতা স্মরিতে মনে ফুটে ওঠে পরিচিত মুখখনি, লাজে বিস্ময়ে ভকতি হরফে ঘোমটায় দেয় টান । موba--b) দেবের সান্ধ্য আরতির ধ্বনি এখনই গিয়েছে থামি দিবসকৰ্ম্ম অবসানে এই বসেছে গৃহস্বামী, নন্দন পড়ে শাস্ত্রবচন, দুহিতারা করে স্বপ্নরচন, এখনও ত্বরিতে পদেওে গৃহিণী সেবারতা দিবtযামী, মৰ্ত্তাসীমায় স্বর্গে হেরিতে এসে কি আকাশে নামি ? অপাপবিদ্ধ কিশোরী কুমারী পল্লীবালিকাগুলি, তোমার উদয় সখীরে দেপায় তর্জনী তার তুলি', চারিটি তারক। গণিবার ছলে, তোমা পানে চেয়ে রহে কুতূহলে, চূর্ণ অলক উড়ে সাৰ-বায় খসি পড়ে বাস ছলি, চেয়ে থাকে তৰু অপলক-আঁখি নীলেীবর খুলি। এখনি ষামিনী আসিবে শিপিনী উড়ায়ে পাথ, তিমিরবর্হে খচিত অযুত হীরক-রাক আনিলে কি তারই আগমনী বাণী অথবা আলোর জলধারা টানি ; অথবা দিবার শেষ-দীপ-শিখা বেদনামাখl, অথবা খামলী গোধূলির ভালে টিপটি স্বাক ? তুমি জীবনের শেষ আয়ু তুমি মরণে প্রথম আলে, তুমি বিচিত্র, স্বধশেষে আসি দুখ রাতে দীপ জালো, আলো ও আঁধারে হে চিরসদ্ধি, বিরহ ও প্রেমে করেছ বন্দী, অন্তরে কস্ত রী-গন্ধ মুগ-মদ-কণা ঢালে, ছুরাশার শেষ শাস্তি সীমায় স্বপন লোকের আলো ।