পাতা:প্রবাসী (ঊনত্রিংশ ভাগ, দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৮৬৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ե- օ প্রবাসী—চৈত্র, ১৩৩৬ [ ২৯শ:ভাগ, ২য় খণ্ড नांटम यांश्लांब्र जष्ट्रबांन कट्द्रन । cनांनाईट्टैि इहेरङ প্রকাশিত পুস্তকাবলী তিনি স্বদেশবাসীদের মধ্যে বিতরণ করিতেন, এবং তাঁহাতে ধৰ্ম্ম-সংক্রান্ত কিছুই থাকিবে না এইরূপ অঙ্গীকারদানে গ্রাম্য স্কুল-মাষ্টারদিগকে তাহ ব্যবহার করিতে প্ররোচিত ফরিয়াছিলেন। ধৰ্ম্ম বিষয়ে রাধাকান্ত দেব রক্ষণশীল ও গোড় হিন্দু ছিলেন । ১৮২৯, ডিসেম্বর মাসে লর্ড উইলিয়াম বেণ্টিঙ্ক যখন ‘সতীদাহ’ বে-আইনি বলিয়া ঘোষণা করেন, তখন রাধাকান্ত দেবই পিতৃপ্রতিষ্ঠিত ধর্শ্বসভার পক্ষ হইতে এই মঙ্গলময় বিধানের বিরুদ্ধে বিলাতে আপীল করিয়াছিলেন । জীবনে রাধাকান্ত বহু রাজ-সম্মানের অধিকারী হুইয়াছিলেন । ১৮৩৫ খৃষ্টাব্দে তিনি কলিকাতা শহরের Justice of the Peace or wën'sfaw Ulfate; নিযুক্ত হন। তখনকার দিনে খুব কম দেশীয় লোকের ভাগ্যেই এই উচ্চ সন্মান লাভ ঘটিত । ১৮৩৭ খৃষ্টাব্দের জুলাই মাসে গভর্ণর-জেনারেল র্তাহাকে ‘রাজা বাহাদুর" উপাধিতে ভূষিত করিয়া তাছার গুণের সন্মান করেন। ১৮৫১ খৃষ্টাব্দে "ব্রিটিশ ইণ্ডিয়া এসোসিয়েশন’ প্রতিষ্ঠিত হইলে রাধাকান্ত দেবই ইহার প্রথম সভাপতি নিৰ্ব্বাচিত হইয়াছিলেন। বাঙালীদের মধ্যে তিনিই সৰ্ব্বপ্রথম ১৮৬৬ খৃষ্টাম্বে কে-পি-এস-আই উপাধি লাভ করেন । বিলাতের রয়েল এশিয়াটিক সোসাইটি রাজা রাধাকান্ত দেবের নিকট হইতে বহু সাহায্য পাইয়াছিলেন,—এইজন্ত ১৮২৮, ১৭ই মে সোসাইটি র্তাহাকে একখানি ডিপ্লোমা দ্বারা সম্মানিত করিয়াছিলেন। সোসাইটির চেয়ারম্যান স্তর আলেকজেণ্ডার জনসন ১৮২৮, ৪ঠা জুলাই তাহাকে একখানি পত্র লেখেন। তাঁহাতে তিনি লিথিয়াছিলেন— 'বর্তমান স্বযোগে ভারতের গভর্ণর বাহাদুরের নিকট সংযুক্ত প্রস্তাবের একখণ্ড প্রেরণ করিতেছি । ইহা হইতে আপনার প্রতিভা সম্বন্ধে সোসাইটি কিরূপ উচ্চ ধারণা পোষণ করেন, তাহা তিনি বুঝিতে পারিবেন ; এবং আপনি যে সাহিত্য সেবায় নিযুক্ত আছেন, তাহার উন্নতিবিধানে তিনি যথাসাধ্য সাহায্য করিতে পারিবেন।” ফালী ভাষায় লিখিত উদ্যান-রচনা বিষয়ক একখানি পুস্তকের অংশ-বিশেষ ইংরেজীতে অনুবাদ করিয়া ১৮৪২, ৩রা ডিসেম্বর রাধাকান্ত দেব রয়েল এশিয়াটিক সোসাইটিতে পাঠাইয়াছিলেন। মান্তবর গভর্ণর মারকুইস্-অফ-হেষ্টিংস ও হাইকোটের প্রধান বিচারপতি স্তর ই-এইচ-ঈষ্ট মহোদয়ের বিলাত গমনকালে স্বদেশবাসীর অঙ্গুরোধে রাধাকান্ত দেবই ইংরেজী, বাংলা ও ফাসী ভাষায় অভিনন্দনপত্র রচনা করিয়া তাহাদের সমক্ষে পাঠ করিয়াছিলেন। গ্রেট বিটেন ও আয়াল্যাণ্ডের রয়েল এশিয়াটিক সোসাইটির কার্য্য-বিবরণীর দ্বিতীয় খণ্ডের পরিশিষ্ট্রে তাহার প্রথম রচনা প্রকাশিত হইয়াছিল। ভারতীয় Horticultural offs: কাৰ্য্য-বিবরণীর প্রথম ও দ্বিতীয় খণ্ডে ২৪ পরগণ৷ প্রভৃতির কৃষি-সম্বন্ধীয় আলোচন ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় রচনা প্রকাশিত হইয়াছিল। ডাক্তার ক্যামেরনের বঙ্গদেশে বসন্ত-টীকার বর্তমান অবস্থা' নামক রিপোর্টে ‘ভারতীয় টাকা ও বসন্ত রোগ" শীর্ষক রাধাকাস্ত দেবের দুইখানি পত্র স্থান পাইয়াছিল। ১৮৬৭, ১৯এ এপ্রিল বৃন্দাবনে রাজা রাধাকান্ত দেবের মৃত্যু হয়। - রাজা রাধাকান্ত দেব স্বদেশ-সেবায় আত্মনিয়োগ করিয়৷ যে-সকল জনহিতকর কার্য্য করিয়া গিয়াছেন, সেগুলি উনবিংশ শতাব্দীর বাংলার ইতিহাসে তাহাকে চিরস্মরণীয় করিয়া রাখিবে । Agricultural and