পাতা:প্রাচীন বাঙ্গলা সাহিত্যে মুসলমানের অবদান.djvu/২১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রাচীন বাঙ্গল সাহিত্যে মুসলমানের অবদান ー o? পূৰ্ব্ব-পুরুষের বংশানুক্রমে অর্জন করিয়া রক্ষা করিয়াছেন, যাহা সংসারের চিন্তা ভুলাইয়। দারিদ্র্য ও আধিব্যাধি জড়িত এই মানব-জীবনে নিৰ্ম্মল অপূৰ্ব্ব সাস্তৃনার বাণী বহন করিয়া আনিয়াছে—তবেই আমাদের কর্তব্য পালন করা হইবে। আমাদের ভাষা-সুন্দরী অপরূপ রূপে জগৎ মুগ্ধ করিবেন, তিনি বোর্খা পরিয়া আসুন কিংবা অবগুণ্ঠনবতী হইয়া আসুন, তিনি গলায় হাস্লিই পরুন বা সাতনড়ি হারই পরুন, গায়ে চন্দনই মাখুন, কি আতরে তাহা বাসিত করুন, তাহাতে কিছু আসিবে যাইবে না । এই স্থানীয়-ইতিহাস-সম্বলিত কবিতাগুলির মধ্যে সেখ, মন্‌হুর রচিত ‘শমসের গাজির গান একখানি প্রসিদ্ধ পুস্তক, ইহার কাব্যাংশ হইতে ঐতিহাসিক অংশই উপাদেয়—ইহা বাঙ্গালা দেশের এক প্রান্তের একটি বিশ্বস্ত বিবরণী, আকারে ক্ষুদ্র হইলেও গুণে গরীয়ান। শমসের গাজি একটি দরিদ্র কৃষকের সন্তান হইয়াও কিরূপে সে কিছুকালের জন্ত ত্রিপুররাজ-সিংহাসন দখল করিয়াছিল তাহার খাটি ইতিহাস এই পুস্তকে অতি সরল ভাষায় প্রদত্ত হইয়াছে। আলিবর্দী খা ইহাকে কিরূপে মুর্শিদাবাদে নিমন্ত্ৰণ করিয়া হত্যাসাধন পূর্বক আতিথ্য-সৎকারের দৃষ্টান্ত দেখাইয়াছিলেন, তাহা গাজির বন্ধু ও চরিত-লেখক সেখ মন্‌হুর করুণভাবে বর্ণনা করিয়াছেন। বাঙ্গালার বিস্তৃত ইতিহাস যিনি লিখিবেন, তাহাকে তাহার এক পৃষ্ঠায়ু এই স্থলিখিত বিবরণীর জন্ত স্থান করিয়া দিতে হইবে। শমসের গাজি ১৭৫১ খৃষ্টাব্দে নিহত হন। এই পুস্তক নোয়াখালী হইতে মৌলভি লুৎফুল-কবির প্রকাশ করিয়াছিলেন, এখন দুষ্প্রাপ্য। আমাদের দেশের এই অজস্র দানের সমঝদার এখানে অবশুই আছেন, তাহাদের সন্ধান লইতে আমি ঢাকায় আসিয়াছি। ইহারা অধিকাংশই পূৰ্ব্ববঙ্গের কবি, সুতরাং পূর্ববঙ্গে তাহাদের দরদী কাহাকেও পাই কিনা, জানিতে আসিয়াছি। গীতিকাগুলি লুপ্ত হইতে বসিয়াছে, কিন্তু ফুলের মত