পাতা:বঙ্কিমচন্দ্রের উপন্যাস গ্রন্থাবলী (তৃতীয় ভাগ).djvu/২০৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


** 嵐 愛 দেবীচৌধুরাণী • | مارچ ন । তুই বড় দুষ্ট , সেই যে, প্রথম ষে রিয়ে । সা। লেঃ বামুনের মেয়ে । . -- ম। ই দামুনের মেয়ে ! তা ম্বর করেন: #, , সা। কাল মদি তোমায়ু বিদায় দিয়ে আমায় নিয়েম্বর করে, তুমি কি বাদীর মেয়ে হবে ? ন ; তুই জামায় গাল দিবি কেন লী, পোড়ারমুখী? - সা। তুই আর এক জনকে গাল দিচ্ছিস্ কেন লা; পোড়ারমুখী ? ন । মৰ্ব গে যা—আমি ঠাকুরুণকে গিয়ে বলিয়া দিই, তুই বড়মানুষের মেয়ে বলে আমায় যা ইচ্ছা তাই বলিস্ এই বলিয়া নয়নতার ওরফে কালপেচা ঝমর ঝমর করিয়! ফিরিয়া যায়—তখন সাগর দেখিল, প্রমাদ ! ডাকিল, “না দিদি, ফের ফের ! ঘাট হয়েছে, দিদি, ফের ! এই দোর খুলিতেছি ।" নয়নতারা রাগিয়াছিল—ফিরিবার বড় মত ছিল না। কিন্তু ঘরের ভিতর দ্বার দিয়৷ সাগর কত সন্দেশ থাইতেছে, ইহা দেখিবার একটু ইচ্ছা ছিল, তাই ফিরিল । ঘরের ভিতর প্রবেশ করিয়া দেখিল, সন্দেশ মহে—আর এক জন লোক আছে । জিজ্ঞাসা করিল, “এ আবার কে ?” সী । প্রফুল্ল । ন । সে আবার কে ? স। মুচিবউ । ন। এই সুন্দর ? সী । তোমার চেয়ে নয় ? ন। নে, আর জালাস নে । ভোর চেয়ে ত নয় । পঞ্চম পরিচ্ছেদ এ দিকে কৰ্ত্তা মহাশয় এক প্রহর রাত্রে গৃহমধ্যে ভোজনার্থ আসিলেন । গৃহিণী ব্যজন-হস্তে ভোজনপাত্রের নিকট শোভমানা—পাতে মাছি নাই—তবু নারীধৰ্ম্মের পালনার্থ মাছি তাড়াইতে হইবে । হায় ! কোন পাপিষ্ঠ নরাধমের এ পরম রমণীয় ধৰ্ম্ম লোপ করিতেছে ? গৃহিণীর পাচ জন দাসী অাছে—কিন্তু স্বামিসেব। আর কার সাধ্য করিতে আসে ? যে পাপিষ্ঠের এ ধৰ্ম্মের লোপ করিতেছে, হে আকাশ ! তাহাদের মাথার জন্য কি তোমার বজ্র নাই ? কর্তা আহার করিতে করিতে জিজ্ঞাসা করিলেন, “বাগদী বেটী গিয়াছে কি ?” లి=ళాని ఆ হলে আর নিয়ে । গুণীি মাছি তাড়াইয়া নথ নাড়িয়া বাদক “রাত্রে আবার সে কোথায় যাবে? রাত্রে একটা অতিথি এলে তুমি ভাড়াও না—আর আমি বউটাকে রাত্রে তাড়িয়ে দেব ?” ' কৰ্ত্ত । অতিথি হয়, অতিথিশালায় যাক না ? এখানে কেন ? গিনী । আমি তাড়াতে পারবে না, আমি ত বলেছি। তাড়াতে হয়, তুমি তাড়াও । বড় মুন্দরवउँ किछु-- কর্তা । বাগদীর ঘরে অমন দুটে একট। মুনার হয় । তা আমিই তাড়াচ্ছি । ব্রজকে ডাক ত রে । । ব্রজ কৰ্ত্তার ছেলের নাম। এক জন চাকরাণী ব্রজেশ্বরকে ডাকিয়া আনিল ; ব্রজেশ্বরের বয়স একুশ বাইশ ; অনিন্দ সুন্দর পুরুষ,-পিতার কাছে বিনীত ভাবে আসিয়া দাড়াইল—কথা কহিতে সাহস মাই । দেখিয়া হরবল্লভ বলিলেন, “বাপু, তোমার তিন সংসার—মনে আছে ?” ব্ৰজ চুপ করিয়া রহিল । “প্রথম বিবাহ মনে হয়—সে একটা বাগদীর মেয়ে ?” ব্ৰজ নীরব—বাপের সাক্ষাতে—বাইশ বছরের ছেলে—হীরার ধার হইলেও সেকালে কথা কহিত না —এখন যত বড় মূৰ্খ ছেলে, তত বড় লম্বা স্পীচ ঝাড়ে । কৰ্ত্ত বলিতে লাগিলেন, “সে বাগদী বেটী আজ এখানে এসেছে—জোর ক’রে থাকবে, তা তোমার গর্ভধারিণীকে বল্‌লেম ধে, ঝাটা মেরে, তাড়াও । মেয়েমানুষ মেয়েমানুষের গায়ে হাত কি দিতে পারে ? এ তোমার কাজ । তোমারই অধিকার—আর কেহই স্পর্শ করিতে পারে না। তুমি আজ রাত্রে তাকে বাট মেরে তাড়াইয়া দিবে। নহিলে আমার ঘুম হইবে না ।” - গিন্নী বলিলেন, “ছি ! বাবা ! মেয়ে মানুষের গায়ে হাত তুল না। ওঁর কথা রাখিতেই হইবে, আমাব কথ। কিছু চলবে না ? তা ষা কর, ভাল কথায় বিদায় করিও ।” * - ব্রজ বাপের কথায় উত্তর দিল, “যে আজ্ঞা,” মা’র কথায় উত্তর দিল, “ভাল ।” এই বলিয়া ব্ৰজেশ্বর একটু দাড়াইল । সেই অব কাশে গৃহিণী কৰ্ত্তাকে জিজ্ঞাস করিলেন, “তুমি যে বউকে তাড়াবে—বউ খাবে কি করিয়া ?” কৰ্ত্ত বলিলেন,—“যা খুলী করুক—চুরি করুক— ডাকাতি করুক--ভিক্ষা করুক।” 哆