পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (কায়স্থ কাণ্ড, ষষ্ঠাংশ, দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থ কাণ্ড, প্রথম খণ্ড).djvu/৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৪৩ বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস [ তৃতীয় অধ্যায়। বৃদ্ধগণের বিশ্বাস বল্লালের ভিটার নিকটবর্তী সাওতার সমস্ত জমিতে পূৰ্ব্বে বহু লোকের বাস ছিল । সেখানকার লোকেরা ক্রমে ক্রমে সরিয়া আসিয়া বৰ্ত্তমান দেবগ্রামের মধ্যে বাস করিতেছে। উক্ত সাওতার দক্ষিণসীমা হইত্তে প্রাচীন বিক্রমপুর ক্রমেই সরিয়া গিয়া বর্তমান বিক্রমপুরে পরিণত হইয়াছে । এ দিকে উত্তর সীমা হইতে দেবগ্রামও ক্রমশঃ সরিয়া আসয়া বর্তমান গ্রামের অবস্থা হইয়াছে । পূৰ্ব্বতন বিক্রমপুরে। ধ্বংসাবশেষ হইতে প্রাপ্ত বৌদ্ধ ও হিন্দু দেব দেবীর মূৰ্ত্তি দেবগ্রামের মধ্যে আনিয়া রাখা হয়। * তন্মধ্যে কুলাইচণ্ডী বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। বৌদ্ধদিগের মঞ্জুনী মূৰ্ত্তিই অধুনা কুলাইচণ্ডী নামে খ্যাত হইয়াছে। দুইশত বর্ষ পূর্বে কবিশেখর এখানকার বিশালাক্ষী দেবীর কথা উল্লেখ করিয়া গিয়াছেন। সাওতা হইতে দুইট প্রাচীন জাঙ্গাল ৰ৷ রাস্ত বাহির হইয়। একটা পশ্চিমদিক্‌ দিয়া বরাবর ভাগ্য, চাদপুর, বরগাছা হইয়। বিক্রমপুরের “জিতের মাঠ’ দিয়া যথাক্রমে ভবানীপুর, সুখপুকুর, রাজাপুর হইয়া বিল্বগ্রামের দক্ষিণদিকে নবদ্বীপ অভিমুখে গিয়াছে । অপর জাঙ্গাল বা প্রাচীন রাস্ত পূৰ্ব্বদিক দিয়া চাদপুর, কালীনগর, মুর ও সেনপুর হইয় ঘূর্ণার দক্ষিণ ও মালুমগাছার পাশ্ব দিয়া গৰীপুর পর্য্যন্ত গিয় অদৃগু হইয়াছে। গবীপুরের প্রাচীন লোকের বলিয়া থাকেন যে, ঐ জাঙ্গাল পূৰ্ব্বে বহুদূরপর্য্যন্ত বিস্তৃত ছিল, ক্রমে কৃষকগণের রূপায় সে সমস্তই লুপ্ত হইয়াছে । উক্ত উভয় জাঙ্গালই "রাজার জাঙ্গাল” বা “বল্লালের জাঙ্গল” নামে স্থানীয় অধিবাসীগণের নিকট পরিচিত। ঐ জাঙ্গালের ধীরে ধীরে ৩/৪ ক্রোশ অস্তুর বড় বড় পুরাতন পুষ্করিণী দেখা যায়, তন্মধ্যে সাওত, ভাগ, বরগাছী, বিক্রমপুর, ভবানীপুর, রাজাপুর; বিম্ব গ্রাম ও নবদ্বীপের পুষ্করিণী প্রসিদ্ধ। ভবানীপুর ও নবদ্বীপের পুষ্করিণী আজও “বর্নালের দীঘী” নামেই পরিচিত। আজও কেহ অপর স্থানের মজাপুকুরগুলিতে প্লালসেনের নামের অপভ্রংশ ‘বললামসেনের কীৰ্ত্তি বলিয়া মনে করেন। এই বিক্রমপুর প্রাচীন বিক্রমপুরের অংশমাত্র। এখানকার জমিদারের কাগজ হইতে জানা যায় যে, পাশ্ববৰ্ত্তী বরগাছী, কালীনগর, বিক্রমপুর-হাট, বিক্রমপুর-কুঠ প্রভৃতি স্থান বিক্রমপুর মৌজারই সামিল। দেবগ্রামের পাশ্ববৰ্ত্ত ডিঙ্গেলগ্রামের দক্ষিণে যে জোল বা নিম্নভূমি আছে, বিক্রমপুরের উত্তরপূৰ্ব্ব সীমা ততদূর বিস্তৃত। বিক্রমপুরের মধ্যে যে “জাঙ্গীর খাল” আছে, সেই খাল দিয়া পূৰ্ব্বে ভাগীরথীর স্রোত 00S BBBS DDDS DDDDS DDDD DDD DDD DDDDB DDDDD DDDBB BBBSBB সাহিত্য সম্মিলনে উপস্থি ,করিয়ছিলাম । SDDD BBBBBDD DDD BBBDDD BBBBDDS BSBBSBS BBBD D DDBBBS BBB BBBBS BB BBBBB BB BBBtt DDYS DDD DDD BB BBB DDB BBBBB BBB জtছে) ।