পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৫১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কৃষ্ণচন্দ্রীয় যুগ-ভারতচন্দ্র—১৭১২-১৭৬৩ খৃঃ। Ꮌ8Ꮼ☾ কি দোষে মুছিল হরিমন্দির-ফোটায়। কি দোষে ফেলিল ছিড়ি তুলসীমালায় ॥ হের দেখ তুলসী-পত্রের গড়াগড়ি। বিল্বপত্র লইয়া দেখহ রড়ারড়ি ॥ হের দেখ টানিয়া ফেলিল শালগ্রাম। রাগে মত্ত হৈয়া ছাড়িল হরিনাম। মোর ভক্ত হয়ে যেবা নাহি মানে হরি। আমি ত তাহার পূজা গ্রহণ না করি ॥ হরি-ভক্ত হৈয়। যেবা না মানে আমারে। কদাচ কমলাকান্ত না চাহেন তারে ॥ হরি-হর দুই মোরা অভেদ-শরীর। অভেদে যে জন ভজে সেই ভক্ত ধীর ॥ অন্নপূর্ণ ও ঈশ্বরী পাটুনী । অন্নপূর্ণ উত্তরিলা গাঙ্গনীর তীরে। পার কর বলিয়া ডাকিলা পাটুনীরে ॥ সেই ঘাটে খেয়া দেয় ঈশ্বরী পাটুনী। ত্বরায় আনিল নৌকা বামা-স্বর শুনি ॥ ঈশ্বরীরে জিজ্ঞাসিল ঈশ্বরী পাটুনী। এক দেখি কুল-বধূ কে বট আপনি ॥ পরিচয় না দিলে করিতে নারি পার । ভয় করি কি জানি কে দিবে ফেরফার ॥ ঈশ্বরীরে পরিচয় কহেন ঈশ্বরী। বুঝহ ঈশ্বরী আমি পরিচয় করি। বিশেষণে সবিশেষ কহিবারে পারি। জানহ স্বামীর নাম নাহি ধরে নারী ॥ গোত্রের প্রধান পিতা মুখবংশে জাত। পরম কুলীন স্বামী বন্দ্যবংশ খ্যাত ॥ পিতামহ দিলা মোরে অন্নপূর্ণ নাম। অনেকের পতি তেই পতি মোর বাম ॥ অতি বড় বৃদ্ধ পতি সিদ্ধিতে নিপুণ । কোন গুণ নাহি তার কপালে আগুন । > ア8